ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সুযোগ পেয়েও ভর্তি হতে পারছে না আহাম্মদ আলী

গ্রামে গ্রামে ফেরি করে মাল বিক্রেতা বাবার সন্তান কুড়িগ্রাম জেলার চিলমারীর উপজেলার আহাম্মদ আলী। এক বেলা লেখাপড়া আর একবেলা প্রাইভেট পড়িয়ে এইচএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়ে পাস করে সে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় খ ইউনিটে মেধা তালিকায় ১৫২৭তম স্থান অধিকার করে ভর্তির সুযোগ পেয়েও শুধুমাত্রা অর্থাভাবে ভর্তি হতে পারছে না এই মেধাবী তরুণ। আগামী রবিবার (২৬ নভেম্বর) ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির শেষ দিন। ভর্তির শেষ তারিখ যতই ঘনিয়ে আসছে ততই সে হতাশাগ্রস্থ হয়ে পড়ছে।

কুড়িগ্রামের চিলমারী উপজেলার পাত্রখাতা এলাকার ফেরিওয়ালা নুর ইসলামের দ্বিতীয় ছেলে আহাম্মদ আলী। দুই ছেলে ও তিন মেয়েকে ভরনপোষনের পর তাদের লেখাপড়ার খরচ যোগানো আহাম্মদের পিতার পক্ষে প্রায় অসম্ভব ব্যাপার। স্থানীয় মেধাবী কল্যান সংস্থার সহায়তা ও নিজে প্রাইভেট পরিয়ে এসএসসিতে জিপিএ-৪.৮৮ অর্জন করে আহাম্মদ। পরবর্তীতে লেখপড়ার পাশাপাশি নিজে প্রাইভেট পড়িয়ে চিলমারী ডিগ্রী কলেজ থেকে এইচ এসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়ে জিপিএ-৫ পায়। সৈয়দপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার চিলমারীর কৃতি সন্তান বজলুর রশিদ এর সহায়তায় বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি কোচিং সম্পন্ন করে আহাম্মদ আলী।

সে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় খ ইউনিটে ভর্তির সুযোগ পায়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হতে প্রায় ১৫-২০ হাজার টাকা দরকার। এছাড়াও ভর্তি হয়ে শিক্ষা জীবনের বাকী পথ কিভাবে পাড়ি দিবে তা তার জানা নেই। আহাম্মদ আলীর মা আছমা বেগম ছেলের উচ্চ শিক্ষার জন্য সমাজের বিত্তবান ও শিক্ষানুরাগী ব্যাক্তিদের সাহায্য সহযোগীতা কামনা করেছেন। যোগাযোগের জন্য ০১৯২২-০১৭৯৫৮ নম্বরে ফোন করতে অনুরোধ করেছে আহাম্মদ আলী।

মোঃ মনিরুজ্জামান, কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি