ইতিহাসের কেউ পারেনি যা তাই করে দেখালেন নেইমার-কাভানিরা

নেইমার-কাভানির শো চলছেই। বুধবারও তাদের কারিশমা দেখল ফুটবল দুনিয়া। উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগে নেইমার-কাভানি-এমবাপ্পের দুর্দান্ত পারফরম্যান্সের সৌজন্যেই পিএসজি এদিন ৭-১ গোলে বিধ্বস্ত করেছে সেল্টিককে।

সেইসঙ্গে ইতিহাসের প্রথম দল হিসেবে নতুন এক কীর্তি গড়েছে পিএসজি। ইউরোপ সেরার এই টুর্নামেন্টের প্রথম পাঁচ ম্যাচেই ২৪ গোল করেছে কাভানি-নেইমাররা। যা এর আগে কোনো দলই তা করে দেখাতে পারেনি। অথচ চ্যাম্পিয়ন্স লিগের গ্রুপ পর্বে আরও একটা ম্যাচ বাকি রয়েছে প্যারিস জায়ান্টদের।

অথচ, শুরুটা কিন্তু দুর্দান্তভাবেই করে সেল্টিক। নিজেদের সমর্থকদের সামনে ম্যাচের প্রথম মিনিটেই গোল খেয়ে বসে পিএসজি। গোল করে দলকে এগিয়ে দেন সেল্টিকের ফরাসি ফরোয়ার্ড মুসা দেম্বেলে। শুরুতে গোল খেয়েই যেন তেতে ওঠেন উনাই এমেরির শিষ্যরা। তার প্রমাণ মেলে ম্যাচের নবম মিনিটেই। ডি-বক্সের মধ্যে কিছুটা এগিয়ে দুরূহ কোণ থেকে গোলরক্ষককে পরাস্ত করে পিএসজিকে দারুণ এক গোল উপহার দেন নেইমার। প্রথমার্ধের ২২ মিনিটে আবারও গোল করেন সাবেক বার্সেলোনার এই তারকা ফরোয়ার্ড।

তারপরও গোল উৎসব থামেনি স্বাগতিকদের। ছয় মিনিট পর লাইম লাইটে এডিনসন কাভানি। নেইমারের অ্যাসিস্টেই গোল করেন উরুগুইয়ান স্ট্রাইকার। নেইমার-কাভানির পর গোলের দেখা পান দলের আরেক তারকা কিলিয়ান এমবাপ্পেও। ম্যাচের ৩৫ মিনিটে জোরালো শটে লক্ষ্যভেদ করেন তরুণ ফরাসি এই ফরোয়ার্ড। এর ফলে বিরতিতে যাওয়ার আগেই ম্যাচের ফলাফল দাঁড়ায় ৪-১!

দ্বিতীয়ার্ধেও একের পর এক গোল উৎসবে মেতেছে স্বাগতিক সমর্থকরা। ৭৫ মিনিটে নিচু কোনাকুনি শটে লক্ষ্যভেদ করেন ভেরাত্তি। তার চার মিনিট পর জাভিয়ের পাস্তোরের দারুণ ক্রসে জোরালো ভলিতে নিজের দ্বিতীয় গোলটি করেন কাভানি। সেল্টিকের বিপক্ষে ম্যাচেই পিএসজির হয়ে সবধরণের প্রতিযোগীতামূলক টুর্নামেন্টে ১৫০ গোলের মাইলফলক স্পর্শ করেন এই উরুগুইয়ান স্ট্রাইকার।

ম্যাচের বয়স যখন ৮০ মিনিট তখন ২২ গজ দূর থেকে জোরালো শটে সেল্টিকের কফিনে শেষ পেরেকটি ঠুকে দেন পিএসজির ব্রাজিলিয়ান ডিফেন্ডার দানি আলভেজ। আর তাতেই চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ইতিহাসে বড় ব্যবধানের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে পিএসজি।

এবারের আসরে এখন পর্যন্ত খেলা পাঁচ ম্যাচের সবকটিতে জিতে ১৫ পয়েন্ট নিয়ে ‘বি’ গ্রুপের শীর্ষে আছে পিএসজি। অন্য ম্যাচে বায়ার্ন মিউনিখ ২-১ গোলে হারিয়েছে অ্যান্ডারলেখটকে। এর ফলে ১২ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে বায়ার্ন। আগেই নকআউট পর্ব নিশ্চিত করা এই দুই দল শেষ রাউন্ডে মুখোমুখি হবে। অ্যালিয়াঞ্জ অ্যারেনায় ফিরতি লেগের সেই ম্যাচের শেষেই নির্ধারণ হবে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন।

চলতি মৌসুমে এখন পর্যন্ত সমান ছয়টি করে গোল করলেন নেইমার ও কাভানি। আর আট গোল নিয়ে তালিকার শীর্ষে অবস্থান করছেন ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো।