দুটি পানির খনির সন্ধান পাওয়া গেছে: ওয়াসা

মঙ্গলবার রাজধানীর কারওয়ান বাজারে ওয়াসা ভবনে ‘ঢাকা ওয়াসার সার্বিক অগ্রগতি: আগামীর কর্ম পরিকল্পনা’ শীর্ষক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানানো হয়। খনি দুটির একটি হচ্ছে সাভারের তেঁতুলঝরা ভাকুর্তা এলাকায়। অপরটি মানিকগঞ্জের সিঙ্গাইরে। এই খনি প্রায় ৬০০ ফিট নিচে এবং এর বিস্তৃতিও অনেকদূর।

সাভার ও মানিকগঞ্জে দুটি পানির খনির সন্ধান পাওয়া গেছে। ওয়াসার পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, এই দুটি পানির খনির উৎস হিমালয় পর্বতমালার একটি হিমবাহ। ওয়াসার দাবি, খনি দুটিতে প্রায় ৪০ বছর ব্যবহার করার মতো পানি জমা আছে এবং তা এখনও আসছে। এই দুটি খনির পানি কখনও ফুরাবে না। খনি দুটি থেকে শিগগিরই পানি সরবরাহ করা সম্ভব হবে। ২০১৮ সালের মার্চের দিকে রাজধানীর মিরপুর এলাকায় এই খনির পানি সরবরাহ শুরু হতে পারে।

খনির পানি পাইপলাইন দিয়ে মিরপুরে নিয়ে আসা হবে, কারণ সেখানে পানির স্তর নেমে যাচ্ছে। এ পানি খাবার উপযুক্ত তবে এতে আয়রনের মাত্রা বেশি তাই সেটা দূর করার জন্য সেখানে একটা প্ল্যান্ট স্থাপন করা হয়েছে। ওয়াসা’র পক্ষ থেকে আরও জানানো হয়, ঢাকা ওয়াসা ইতোমধ্যেই ভূগর্ভস্থ পানির ওপর নির্ভরতা কমিয়ে মাটির ওপরের উৎসজাত পানির দিকে যাচ্ছে। ২০২১ সালের মধ্যে ঢাকার ৭০ ভাগ পানি মাটির ওপরের উৎস থেকে আসবে- যা পরিবেশবান্ধব।