শরৎচন্দ্রের মনোরমা চরিত্রে জ্যোতিকা জ্যোতি

প্রখ্যাত কথাসাহিত্যিক শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়। তার ছোটগল্প ‘বৈকুণ্ঠের উইল’ অবলম্বনে নির্মিত হলো ধারাবাহিক নাটক। এতে মনোরমা চরিত্রে অভিনয় করেছেন জ্যোতিকা জ্যোতি। ২৬ পর্বের নতুন এ ধারাবাহিকের চিত্রনাট্য ও সংলাপ রচনা করেছেন আল মনসুর। পরিচালনা করেছেন জাহাঙ্গীর আলম সুমন।

এ প্রসঙ্গে জ্যোতিকা জ্যোতি রাইজিংবিডিকে বলেন, ‘আমি গল্পটির মনোরমা চরিত্রটি করেছি। চরিত্রটি গুরত্বপূর্ণ এবং বাস্তবমুখী। পরিচালক জাহাঙ্গীর ভাই সিনিয়র, অনেক ভালো কাজ করেন। সহশিল্পীরাও হেল্পফুল ছিলেন। সব মিলিয়ে কাজটি ভালো হয়েছে।’

চরিত্রটির জন্য বিশেষ কোনো প্রস্তুতি নিয়েছিলেন কিনা? এই প্রশ্নের জবাবে জ্যোতিকা জ্যোতি বলেন, ‘গল্পটা আগের দিনের প্রেক্ষাপটে গড়ে উঠেছে। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, শরৎচন্দ্রের গল্প নিয়ে নির্মিত নাটকে আমি এর আগেও কাজ করেছি। এজন্য এই ধরণের চরিত্রে অভিনয় করতে আমি অভ্যস্ত। আমার জন্য বিষয়টি কঠিন কিছু মনে হয়নি। তাই বিশেষ কোনো প্রস্তুতিরও প্রয়োজন ছিল না। তবে গল্পের প্রয়োজনে ওই সময়ের কস্টিউম ব্যবহার করতে হয়েছে।’

জ্যোতিকা জ্যোতি ছাড়াও এতে অভিনয় করেছেন চিত্রলেখা গুহ, নরেশ ভূইয়া, ডিএ তায়েব, রামিজ রাজু প্রমুখ। ‘বৈকুণ্ঠের উইল’ গল্পটি ১৯১৬ সালে প্রথম প্রকাশিত হয়। তৎকালীন গ্রাম-বাংলার আর্থ-সামাজিক বাস্তবতা উঠে এসেছে গল্পে। শরৎচন্দ্রের আরেকটি কালজয়ী চরিত্র রাজলক্ষ্মী ও শ্রীকান্ত। এই দুটি চরিত্র নিয়ে টলিউডে নির্মিত হচ্ছে ‘রাজলক্ষ্মী ও শ্রীকান্ত’ নামে চলচ্চিত্র। এতে রাজলক্ষ্মী চরিত্রে অভিনয় করবেন জ্যোতিকা জ্যোতি।

২০১৪ সালের শেষের দিকে এ ধারাবাহিকের শুটিং শুরু হয়। এরপর নির্মাতা ‘সোনা বন্ধু’ চলচ্চিত্রের কাজ নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়েন। এর মধ্যে কেটে গেছে দীর্ঘ সময়। আবশেষে আজ শনিবার পুবাইলে নাটকটির দৃশ্য ধারণের কাজ শেষ হয়েছে বলে রাইজিংবিডিকে জানিয়েছেন নির্মাতা। খুব শিগগির একটি বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলে নাটকটি প্রচারিত হবে।