‘মল্লিকাজি আপ বেল বাজাও, ম্যায় আপকো বাজাতা হুঁ’

অক্ষয় গ্রেট ইন্ডিয়ান লাফটার চ্যালেঞ্জের প্রধান বিচারক হয়েছেন সুপারস্টার অক্ষয়। আর সেখানে অংশ নেওয়া কমেডিয়ানদের মেন্টর হিসাবে কাজ করছেন মল্লিকা দুয়া। অক্ষয়ের বিতর্কিত কৌতুকের সৌজন্যে খবরের শিরোনামে উঠে এসেছেন কমেডিয়ান মল্লিকা দুয়া। তাঁকে নিয়ে করা অক্ষয়ের ঠাট্টাকে ঘিরে জলঘোলা হচ্ছে বিস্তর। অভিনেতা-কমেডিয়ান মল্লিকা দুয়া এমনিতেই জনপ্রিয় মুখ। তিনি টিন্ডার আন্টি হিসেবেই বেশি পরিচিত।

সম্প্রতি অক্ষয়ের বিতর্কিত কৌতুকের সৌজন্যে খবরের শিরোনামে উঠে এসেছেন তিনি। তাঁকে নিয়ে করা অক্ষয়ের ঠাট্টাকে ঘিরে বিতর্ক হচ্ছে বিস্তর। টুইটারে অক্ষয়কে তোপ দেগেছেন মল্লিকার বাবা বিনোদ দুয়া। এবার সেসব নিয়েই হাবি অক্ষয়ের হয়ে মুখ খুললেন টুইঙ্কাল খান্না। টুইঙ্কাল সাফ জানান, মল্লিকা হিউমার না বুঝে থাকলে তার কমেডিয়ান হওয়াই সাজে না।

টুইঙ্কাল লিখেছেন, যদি অক্ষয়ের ‘বাজাও’ শব্দটা এত বেশি করে ধরা হয়, তাহলে তো বলতে হয় এক রেডিও স্টেশনের ট্যাগলাইন হচ্ছে ‘বাজাতে রহো’। তবে সেটা তো কখনোই অশ্লীল অর্থে ধরা হয় না! আর যদি অক্ষয়ের কথা আক্ষরিক অর্থ ধরা হয় তাহলে তো বলতে হয় মিস্টার বিনোদ দুয়া যে ‘স্ক্রিউ’ (আই অ্যাম গোয়িং টু স্ক্রিউ দিজ সার্টেন অক্ষয়) শব্দটা ব্যবহার করেছেন, তার অর্থও খুবই অপমানজনক।

অক্ষয় গ্রেট ইন্ডিয়ান লাফটার চ্যালেঞ্জ প্রতিযোগিতার নিয়ম অনুসারে, কোনো প্রতিযোগীর পারফরম্যান্স ভালো লাগলে সেখানে রাখা একটি বেল বাজাতে হয় জাজ বা মেন্টরকে। এমনই এক প্রতিযোগীর ভালো পারফরম্যান্সের পর মল্লিকা বেল বাজাতে গেলে অক্ষয় মজা করে বলেন, ‘মল্লিকাজি আপ বেল বাজাও, ম্যায় আপকো বাজাতা হুঁ’।

আর অক্ষয়ের এই কথাতেই বেজায় চটে যান মল্লিকার বাবা বিনোদ দুয়া। তিনি টুইট করে অক্ষয়কে মেজাজ দেখান। শুরু হয় বিতর্ক। এই বিতর্কে অবশ্য অক্ষয় নিজে এখনো মুখ খোলেননি।