খাবারের মেন্যুতে ২০ পদের তরকারি, থাকছে ড্রাগন ফল

রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শনে রোববার (২৯ অক্টোবর) কক্সবাজার যাবার পথে শনিবার চট্টগ্রাম সার্কিট হাউসে রাতযাপন করবেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। সার্কিট হাউসেই তিনি রাতের খাবার ও সকালের নাস্তা খাবেন। ফলমূলের মধ্যে আছে ড্রাগন ফল, আঙুর, আম, দেশি পেপে, তরমুজ।

সাবেক প্রধানমন্ত্রীর রাতের খাবারে থাকছে জাউভাতের সঙ্গে দেশি মুরগির ঝোল। রাতের খাবারের মেন্যুতে আরো থাকছে কমপক্ষে ২০ পদের তরকারি। খাবারের পর থাকছে টকদই ও ১০ পদের ফলমূল। সূত্রমতে, দলের চেয়ারপারসনসহ ৩০ জনের খাবার তৈরি করা হয় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরীর বাসায়। এজন্য খালেদা জিয়ার বাসার দুজন বাবুর্চি শনিবার সকালে চট্টগ্রাম পৌঁছেন। একজন সার্কিট হাউসে অবস্থান করেন। অন্যজন আমীর খসরুর বাসায় রান্নার কাজ তদারকি করেন। তিনি রাতে সেখানে অবস্থান করে রোববার সকালের নাস্তা তৈরি কাজও তদারকি করবেন।

খাবার তৈরির কাজে নিয়োজিত একজন বিএনপি নেতার সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, দলের চেয়ারপারসন ও দলের শীর্ষ ৩০ নেতার জন্য খাবার তৈরি করা হচ্ছে। খাবারে ৭ পদের মাছ, তিন পদের মাংস, পাঁচ পদের ভর্তা, ইলিশ মাছের ডিম রান্না হয়েছে। রোববার সকালের নাস্তায় থাকবে দেশি মুরগির স্যুপ, সবজি ও রুটি। সূত্রমতে, আগেই থেকে অর্ডার দিয়ে রাখা চাঁদপুরের ইলিশ মাছ নগরীর ফিশারি ঘাট থেকে কেনা হয়েছে শনিবার সকালে। সঙ্গে থাকছে চিংড়ি, রূপচাঁদা, পাবদা, বাটা, কোরাল, সিমবিচি দিয়ে দেশি মাগুর মাছ।

চিনিগুঁড়া চালের সাদা ভাতের সঙ্গে ঘন ডাল, চট্টগ্রামের ঐতিহ্যবাহী মেজবানি মাংস, কালো ভুনা, দেশি মুরগির ঝাল ফ্রাই রান্না করা হয়েছে। এছাড়া শুঁটকি, বেগুন, সিম, আলু ও সজনা পাতার ভর্তা থাকছে রাতের খাবারে। তবে চিনিগুঁড়া চালের জাউ ভাতের সঙ্গে ৫০০ গ্রাম ওজনের দেশি মুরগির মাংস, সবজি ও ডাল দিয়েই বেগম খালেদা জিয়া রাতের খাবার খাবেন বলে জানিয়েছে একাধিক সূত্র।