আনুষ্ঠানিক ভাবে যাত্রা শুরু করছে তামাবিল স্থলবন্দর

দীর্ঘ প্রতীক্ষার অবসান ঘটিয়ে সিলেটের উন্নয়নে নতুন অধ্যায় যোগ করে আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু করতে যাচ্ছে তামাবিল স্থলবন্দরটি। বেলা ১১টায় সিলেটের সীমান্ত জনপদ গোয়াইনঘাটের এ স্থলবন্দরটি উদ্বোধন করা হবে। নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান এ বন্দরটি উদ্বোধন করবেন। এসময় অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন।

২৩.৭২ একর ভূমিতে অধিগ্রহণসহ ৬৯ কোটি টাকা ব্যয়ে সম্প্রসারিত তামাবিল স্থলবন্দর উন্নয়ন প্রকল্পে রয়েছে, সীমানা প্রাচীর, সিসি ইয়ার্ড, পাওয়ার হাউজ, ১০০ কেবি জেনারেটর, দু’টি ওয়েব্রিজ স্কেল পণ্যাগার শেড, ড্রেনেজ-ব্যবস্থা, টয়লেট, গোসলখানাসহ বিদ্যমান প্রকল্প বাস্তবায়ন। এ ছাড়াও প্রস্তাবিত এ প্রকল্পে রয়েছে কর্মকর্তা-কর্মচারী আবাসিক ভবন, পুলিশ ব্যারাক ও নিজস্ব অফিস ভবন।

২০১৫ সালের ৮ মে নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান তামাবিল স্থলবন্দর নির্মাণকাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। ভূমি ও স্থলবন্দরের সার্বিক উন্নয়নসহ প্রকল্প বাস্তবায়নে ৬৯ কোটি ২৬ লাখ ২৮ হাজার টাকা ব্যয় নির্ধারণ করে এর নির্মাণ কাজ শুরু হয়। এটি চালু হলে ভারতের মেঘালয়সহ ত্রিপুরা, নাগাল্যান্ড, আসাম ও ভুটানের সঙ্গে ব্যবসা-বাণিজ্য সম্প্রসারণের সুযোগ সৃষ্টি হবে।

বাংলাদেশ স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান ও অতিরিক্ত সচিব তপন কুমার চক্রবর্তী সভাপতিত্বে এতে বিশেষ অতিথি থাকবেন ডাক- টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি এবং সিলেট-৪ আসনের সংসদ সদস্য ইমরান আহমদ, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যান ও অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগের সিনিয়র সচিব মো. নজিবুর রহমান, নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের