‘ধিক্কার জানাই তাদের প্রতি, যারা এই অমানবিকতার সাথে ছিলেন’

যানজট কমানোর জন্য এই রিক্সা ও ব্যাটারি চালিত প্রায় ১৭ টি রিকশা জব্দ করে বুলডোজার দিয়ে গুড়িয়ে দিয়েছে বগুড়া জেলা প্রশাসন। বুধবার দুপুরে শহরের সাত মাথায় জেলা প্রশাসনের তত্ত্বাবধায়নে এই ধ্বংসযজ্ঞ দেখা যায়। অনেক কাকুতি মিনতি কান্না কাটি করেও নিজেদের রিকশা গুলো রক্ষা করতে পারেননি চালকেরা।

উক্ত ঘটনার প্রতিবাদে নিজ ফেসবুক অ্যাকাউন্টে একটি পোস্ট দিয়েছেন অভিনেত্রী শামীমা তুষ্টি। তিনি লিখেছেন, এই রিকশা শ্রমিকের চোখের পানি স্মরন যারা নজরে নিচ্ছেন না, আরামে আয়েশে আছেন, তারা মনে রাখবেন কোন অমানবিক রাষ্ট্র গঠনের জন্য মুক্তিযুদ্ধ হয় নি। এদেশেই মুক্তিযোদ্ধাদের অধিকাংশেরই ছিলেন এই রিকশা শ্রমিকের মতেনই প্রান্তিক মানুষ।

নিজ স্ট্যাটাসে তিনি আরও বলেন, বগুড়ার প্রতিটি রিকশা শ্রমিকের জন্য ক্ষতিপূরণ দাবি করছি। ধিক্কার জানাই এই অমানবিকতার সাথে যারা ছিলেন তাদের প্রতি। মনে রাখবেন এই লুঙ্গী পরেথাকা রবিউল ইসলামরা মুক্তিযুদ্ধ করে বাংলাদেশ স্বাধীন করেছিলো বলেই দেশে আপনারা ক্ষমতাবান ইচ্ছে মতোন বুলডোজার চালাতে পারেন।

আমাদের সমাজে যারা সবচেয়ে বড় দুর্নীতি করে যাচ্ছে, আইন ভঙ্গ করছে দেশের অর্থনীতির খতি সাধন করছে তারা সব সময়ই থাকছে সাজা থেকে অনেক দূরে। অথচ যারা মাথার ঘাম পায় ফেলে নিজেদের পরিবারের মুখে এক মুঠো খাবার তুলে দিতে অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছে, তারাই আজ সব কিছু থেকে বঞ্চিত। তাদের সব চেয়ে বড় অপরাধ ছিল তারা খেটে খাওয়া মানুষ।