সৌদি আরবে গাড়ি চালানোর অনুমতি পেলেন নারীরা

সৌদি আরবে প্রথমবারের মতো নারীদের গাড়ি চালানোর অনুমতিসংক্রান্ত একটি আদেশ জারি করেছেন দেশটির বাদশাহ সালমান। দেশটির রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যমের বরাত দিয়ে আজ বুধবার বিবিসি অনলাইনের প্রতিবেদনে এই তথ্য জানানো হয়।

বিশ্বে সৌদি আরবই একমাত্র দেশ, যেখানে নারীদের গাড়ি চালানোর অনুমতি নেই। কিন্তু এখন তাঁরা গাড়ি চালানোর অনুমতি পেতে যাচ্ছেন।

সৌদি প্রেস এজেন্সির প্রতিবেদনে বলা হয়, নারীদের গাড়ি চালানোর বিষয়ে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়গুলো ৩০ দিনের মধ্যে প্রতিবেদন তৈরি করবে। আদেশটি ২০১৮ সালের জুন থেকে কার্যকর হবে।

সৌদি আরবের বিদ্যমান ব্যবস্থায় পুরুষেরাই কেবল গাড়ি চালানোর লাইসেন্স পান। কোনো নারী যদি জনসম্মুখে গাড়ি চালান, তাহলে তাঁকে গ্রেপ্তার ও জরিমানা করা হয়।

আইন ভেঙে গাড়ি চালানোয় কিছু নারী কারাভোগও করেছেন।

নারীদের গাড়ি চালানোর অনুমতি দিতে কয়েক বছর ধরে দেশটির মানবাধিকার সংগঠনগুলো প্রচার চালিয়ে আসছে।

সৌদি প্রেস এজেন্সি জানায়, রাজকীয় আদেশ অনুযায়ী পুরুষের পাশাপাশি নারীদেরও গাড়ি চালানোর লাইসেন্স দেওয়া হবে।

নারীদের গাড়ি চালানোর অনুমতিসংক্রান্ত আদেশকে ‘ঐতিহাসিক’ হিসেবে বর্ণনা করেছেন যুক্তরাষ্ট্রে নিযুক্ত সৌদি আরবের রাষ্ট্রদূত প্রিন্স খালেদ বিন সালমান। তিনি বলেছেন, সঠিক সময়ে সঠিক সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

প্রিন্স খালেদ বিন সালমান বলেন, গাড়ি চালানোর লাইসেন্স পাওয়ার জন্য নারীদের তাঁদের পুরুষ অভিভাবকদের অনুমতি নিতে হবে না। নারীরা তাঁদের ইচ্ছানুযায়ী যেকোনো জায়গায় গাড়ি চালাতে পারবেন।

সৌদি সরকারের পদক্ষেপকে স্বাগত জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেসও এই উদ্যোগের প্রশংসা করেছেন।