কৃষক লীগরে সহ-সভাপতি হলনে আরফিুর রহমান দোলন

ফরদিপুররে সমাজসবোমূলক সংস্থা ‘কাঞ্চন মুন্সী ফাউন্ডশেন’-এর প্রতষ্ঠিাতা ও চেয়ারম্যান আরফিুর রহমান দোলনকে বাংলাদশে কৃষক লীগরে কন্দ্রেীয় কমটিরি সহ-সভাপতি করা হয়েছে।

গতকাল সোমবার কৃষক লীগরে কন্দ্রেীয় কমটিরি পক্ষ থেকে পাঠানো এক চিঠিতে দোলনকে সংগঠনরে সহ-সভাপতি করার কথা নশ্চিতি করা হয়। ক্ষমতাসীন দলরে অন্যতম এই সহযোগী সংগঠনরে কন্দ্রেীয় সভাপতি মো. মোতাহার হোসনে মোল্লা ও সাধারণ সম্পাদক খোন্দকার শামসুল হক রজো স্বাক্ষরতি চিঠিতে বলা হয়, ‘কৃষক লীগরে সাংগঠনকি র্কাযক্রম বৃদ্ধরি লক্ষ্যে সহ-সভাপতি চাষী এম এ করমিরে স্থলে আরফিুর রহমান দোলনকে মনোনয়ন প্রদান করা হলো।

চিঠিতে বলা হয়, ‘বঙ্গবন্ধু শখে মুজবিুর রহমানরে স্বপ্নরে সোনার বাংলা গড়ার দৃঢ প্রত্যয় নিয়ে কৃষকরত্ন শেখ হাসনিার ‘ভশিন-২০২১’ বাস্তবায়নে একজন সক্রিয় সংগঠক হিসেবে আপনার মধো, মনন, র্সাবকি র্কমকান্ড ও সহযোগতিা কৃষক লীগকে সমৃদ্ধ করবে। চিঠিতে পাওয়ার পর প্রতবিদেককে দেয়া প্রতিক্রিয়ায় আরফিুর রহমান দোলন তাকে কৃষক লীগরে কন্দ্রেীয় সহ-সভাপতি মনোনীত করায় আওয়ামী লীগরে সভাপতি ও জননত্রেী শখে হাসনিার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান। সংগঠনকে শক্তশিালী করতে সবার সহযোগতিা ও দোয়া চান তিনি।

সামাজকি যোগাযোগ মাধ্যম ফসেবুকে দেয়া একটি পোস্টেও প্রধানমন্ত্রীর প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান দোলন। ফসেবুক পাতায়  তিনি লিখেন:

‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, আওয়ামী লীগ সভানত্রেী জননত্রেী শখে হাসনিাকে কৃতজ্ঞতা। আওয়ামী লীগরে অন্যতম সহযোগী সংগঠন বাংলাদশে কৃষক লীগরে অন্যতম সহ-সভাপতি হিসেবে আমাকে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে। কৃষক লীগরে কন্দ্রেীয় সভাপতি আলহ্বাজ মো. মোতাহার হোসনে মোল্লা ও সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকটে খোন্দকার শামসুল হক রজো স্বাক্ষরতি চিঠিতে গতকাল সোমবার আমাকে এ কথা জানানো হয়েছে। আপনাদরে দোয়া ও সহযোগতিা কামনা করছি।’

আরফিুর রহমান দোলন স্কুলজীবনেই ছাত্রলীগরে সদস্য হিসেবে রাজনীতিতে নাম লখোন। ১৯৮৮ সালে তিনি ফরদিপুররে আলফাডাঙ্গা থানা ছাত্রলীগরে র্কাযনর্বিাহী কমটিরি সদস্য ছলিনে। পরর্বতী সময়ে ঢাকা কলজেরে উত্তর ছাত্রাবাস শাখা ছাত্রলীগরে সহ-সভাপতি হন। উচ্চশক্ষিার জন্য কলকাতায় অবস্থানকালে পশ্চমিবঙ্গে অধ্যয়নরত ছাত্রলীগরে আর্দশরে শিক্ষার্থীদের নিয়ে গঠতি ছাত্রলীগ পশ্চমিবঙ্গরে (ভারত) যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদকরে দায়ত্বি পালন করনে তিনি।

হারুন-অর-রশীদ, ফরদিপুর প্রতিনিধি