‘ভারত হচ্ছে দক্ষিণ এশিয়ার সন্ত্রাসবাদের জন্মদাত্রী’

জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে ভারত-পাকিস্তানের মধ্যে দোষারোপের কাদাছোড়াছুড়ি চলছে। এর আগে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসের অভিযোগ এনে দেশটিকে ‘টেররিস্তান’ (সন্ত্রাসী ভূমি) বলে সম্বোধন করেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। এবার ভারতকে সন্ত্রাসবাদের জন্মদাত্রী বলে তীব্র আক্রমণ করল পাকিস্তান। জাতিসংঘের সাধারণসভায় পাকদূত মালিহা লোধির অভিযোগ পাকিস্তানে সন্ত্রাসবাদের মদত দিচ্ছে ভারত।

গতকাল অধিবেশনে দেওয়া বক্তব্যে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ পাকিস্তানকে সন্ত্রাসী রপ্তানির কারখানা বলে আখ্যায়িত করেছেন। এর প্রতিক্রিয়ায় পাকিস্তান জানায়, ভারত হচ্ছে দক্ষিণ এশিয়ার সন্ত্রাসবাদের জন্মদাত্রী। তার সঙ্গে বর্ণবাদ আর ফ্যাসিবাদ চমৎকারভাবে জুড়ে দেওয়া হয়েছে। জাতিসংঘে পাকিস্তানের স্থায়ী প্রতিনিধি মালিহা লোধির উদ্ধৃতি দিয়ে দেশটির সংবাদমাধ্যমগুলো জানায়, সবগুলো প্রতিবেশী দেশে ভারত সন্ত্রাসবাদ ছড়িয়ে দিতে স্পন্সর করে।

তিনি বলেন, দক্ষিণ এশিয়ায় সন্ত্রাসবাদের জন্ম দিয়েছে ভারতই। সে কারণে সুষমা স্বরাজ তার নিজের দেশের কাশ্মীর সমস্যাকে এড়িয়ে গেছেন জাতিসংঘের সাধারণ সভার বক্তৃতায়।

লোধির দাবি জাতিসংঘ যদি  দুই দেশের মধ্যে উত্তেজনা প্রশমন করতে চায় তাহলে সবার আগে ভারতকে প্ররোচনামূলক কার্যকলাপ বন্ধ করার হুঁশিয়ারি দিতে হবে। সীমান্তে গুলি বর্ষণ বন্ধ করতে হবে ভারতকে। পাকিস্তানে জঙ্গি কর্যকলাপের মদত দেওয়া বন্ধ করতে হবে ভারতকে।

এতদিন কূটনৈতিক পর্যায়ে ভারতের বিরুদ্ধে অভিযোগ করলেও এই প্রথম আন্তর্জাতিক মঞ্চে ভারতের বিরুদ্ধে মুখ খুলল পাকিস্তান। লোধি বক্তব্যেই উঠে এসেছে বালুচিস্তানে নাক গলাচ্ছেন ভারতের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত ডোভাল। পাকিস্তানের অভ্যন্তরে জঙ্গি কার্যকলাপের মদত দিচ্ছেন তিনি। দুই দেশের মধ্যে এই অস্থিরতা নিরসনে যদি না মেটে তাহলে জাতিসংঘের তাতে হস্তক্ষেপ করার অধিকার আছে বলেও দাবি করেছেন লোধি।

শুধু সন্ত্রাসে প্ররোচনা দেওয়াই নয় প্রতিবেশী রাষ্ট্রকে অস্থির করে তুলতে সবরকম চেষ্টা চালাচ্ছে ভারত। পাকিস্তানে অন্তর্ঘাতে মদত দিচ্ছে ভারত। এমনকী সুষমা স্বরাজ তার বক্তৃতায় পাকিস্তানের জনক মুহাম্মদ আলি জিন্নাকেও অপমান করেছেন বলে অভিযোগ করেছেন লোধি। পাকিস্তান সব সময়েই ভারতের সঙ্গে আলোচনায় বসতে রাজি। বিশেষ করে কাশ্মীর সমস্যা সমাধানে আলোচনা করতে রাজি। কিন্তু আলোচনা শুরুর আগে ভারতকে সুনিশ্চিত করতে হবে তারা পাকিস্তানে কোনও জঙ্গি কার্যকলাপে প্ররোচনা দেবে না।

এর আগে সুষমা স্বরাজ তার বক্তৃতায় দাবি করেছিলেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি পাকিস্তানের দিকে বন্ধুত্বের হাত বাড়িয়েছিলেন, কিন্তু পাকিস্তান তাতে সাড়া দেয়নি। কেন তার জবাব দিতে হবে।