নথিপত্র ছাড়াই বাণিজ্য বাস্তবায়নে সক্ষমতা অর্জন

বিশ্ববাণিজ্য সংস্থার (ডাব্লিউটিও) সিদ্ধান্ত মোতাবেক বাংলাদেশ কোনো রকম কাগজের নথিপত্র ছাড়াই বাণিজ্য (পেপারলেস ট্রেড) কার্যক্রম বাস্তবায়নে সক্ষমতা অর্জন করেছে।

বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেছেন, আন্তর্জাতিক বাণিজ্যে স্বচ্ছতা বাড়ানো, কম সময় ও কম খরচে ব্যবসা-বাণিজ্যের সুবিধা নিশ্চিত করতে প্রস্তুত বাংলাদেশ। এ জন্য এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশই প্রথম পেপারলেস ট্রেড চালু করার চুক্তিতে স্বাক্ষর করেছে। গত শুক্রবার দক্ষিণ কোরিয়ার রাজধানী সিউলে অনুষ্ঠিত এশিয়া-ইউরোপ মিটিং (আসেম) এর সপ্তম ইকোনমিক মিনিস্টার্স মিটিংয়ে (ইএমএম) বাণিজ্যমন্ত্রী এসব কথা বলেন। তিনি ইউরেশিয়া কানেকটিভিটি, ই-কমার্স ও ডিজিটাল বাণিজ্যের ওপর জোর দেন।

তোফায়েল আহমেদ বলেন, বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ বাণিজ্যের প্রায় ৮০ শতাংশ ও আন্তর্জাতিক বাণিজ্যের ২০ শতাংশে তথ্য-প্রযুক্তি ব্যবহার করা হচ্ছে। অগ্রাধিকার ভিত্তিতে বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক বাণিজ্যে তথ্য-প্রযুক্তি ব্যবহারে অবকাঠামো প্রস্তুত করছে। বাংলাদেশ সরকারের বাণিজ্য ক্ষেত্রে সেবাদানকারী অফিসগুলোকে অটোমেশনের আওতায় আনা হয়েছে। এতে বাণিজ্যে খরচ, সময় ও আনুষ্ঠানিকতা অনেক কমে এসেছে।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, এ অঞ্চলে বাণিজ্য ও অর্থনৈতিক যোগাযোগ বাড়াতে হলে সদস্যভুক্ত দেশগুলোর মধ্যে পারস্পরিক সহযোগিতা বাড়াতে হবে। বাণিজ্য জটিলতা কমানো, সহজে জ্বালানি পাওয়া, তথ্য-প্রযুক্তি ও এ অঞ্চলের জনগণের মধ্যে যোগাযোগ বাড়াতে হবে।