চালের দাম পাইকারি বাজারে কমলেও কমেনি খুচরা বাজারে 

দু’দিন ধরে মিলগেট, আমদানি ও পাইকারি—সব পর্যায়ে চালের দাম কমলেও খুচরায় এখনও কমেনি। বৃহস্পতিবার পর্যন্ত খুচরা বাজারে মোটা চাল প্রতিকেজি ৫০ থেকে ৫২ টাকায় বিক্রি হয়।

সরকারের হস্তক্ষেপের পর চালের দাম কমতে শুরু করেছে। ব্যবসায়ীদের আশ্বাসের একদিনের ব্যবধানে মিলগেট ও পাইকারিতে কেজিপ্রতি ২ থেকে ৪ টাকা দাম কমেছে। তবে খুচরা বাজারে এখনও দাম কমার প্রভাব পড়েনি। অবশ্য দু-একদিনের মধ্যে খুচরা বাজারেও চালের দাম কমতে শুরু করবে বলে মনে করছেন বাজার-সংশ্লিষ্টরা।

কম দামে মোকামে চাল বিক্রি করছেন আমদানিকারকরা। আগের দিনের চেয়ে বৃহস্পতিবার কেজিতে দু-এক টাকা কমে মোটা চাল ৪০ থেকে ৪২ টাকা ও মাঝারি চাল ৪৪ থেকে ৪৫ টাকায় বিক্রি করেছেন তারা। গত বুধবার এসব চালের দাম কেজিতে চার টাকা কমেছে। চালের অবৈধ মজুদের বিরুদ্ধে তল্লাশি অব্যাহত থাকায় পাইকারি ও খুচরা ব্যবসায়ীরা কেনাকাটা কমিয়ে দিয়েছেন। এতে চালের দাম আরও কমে আসবে বলে মনে করছেন ব্যবসায়ীরা।

চালের শুল্ক কম ও বাজারে দাম বৃদ্ধির কারণে কয়েক সপ্তাহ ধরে চাল আমদানি বেড়েছে। গত ১৬ আগস্ট চালের আমদানি শুল্ক কমিয়ে ২ শতাংশ করা হয়। চলতি অর্থবছরের জুলাই ও আগস্টে বেসরকারি পর্যায়ে দুই লাখ ৬০ হাজার টন চাল আমদানি হয়। চলতি মাসে গত ২০ দিনে তিন লাখ ৩৫ হাজার টনের বেশি চাল আমদানি করেছেন ব্যবসায়ীরা। দিন দিন আমদানি আরও বাড়ছে। এতে চালের দাম আরও কমবে বলে মনে করছেন ব্যবসায়ীরা।

মাঝারি বিআর-২৮ চাল ৫৭ থেকে ৫৮ টাকা, মিনিকেট ৬৪ থেকে ৬৫ টাকা ও নাজিরশাইল ৭০ থেকে ৭৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।