শ্রীলঙ্কা দলে ফিরলেন সিলভা-লাকমাল

পাকিস্তানের বিপক্ষে সংযুক্ত আরব আমিরাতে অনুষ্ঠিতব্য দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজের জন্য শ্রীলঙ্কা দলে ডাকা হয়েছে ব্যাটসম্যান কৌশাল সিলভাকে। চলতি বছর জানুয়ারিতে সর্বশেষ লংকানদের হয়ে টেস্ট খেলেছেন তিনি। এছাড়া ইনজুরির কারণে ভারতের বিপক্ষে তিন ম্যাচের টেস্ট সিরিজে খেলতে না পারা সুরাঙ্গা লাকমালও ঘোষিত ১৫ সদস্যের দলে ফিরেছেন।   

প্রায় এক মাস আগে ভারতের বিপক্ষে সর্বশেষ খেলা তৃতীয় টেস্টের দল থেকে পাঁচজন খেলোয়াড় বাদ পড়েছেন যার মধ্যে উপল থারাঙ্গাও রয়েছেন। টেস্ট ক্রিকেট থেকে বর্তমানে ছয় মাসের স্বেচ্ছা বিরতিতে রয়েছেন তিনি। বাদ পড়া অন্যরা হলেন- ধনঞ্জয় ডি সিলভা, মালিন্ডা পুষ্পকুমারা, লাহিরু কুমারা ও দুশমান্থা চামিরা। যদিও স্ট্যান্ড-বাই খেলোয়াড় হিসেবে স্কোয়াডে রয়েছেন ধনঞ্জয় ও কুমারা। থারাঙ্গার অনুপস্থিতিতে দিমুথ করুনারত্নের সাথে ইনিংস সূচনা করতে পারেন কৌশাল।

এবারের দলটিতে নতুন মুখ হিসেবে সুযোগ পেয়েছেন ২২ বছর বয়সী উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান সাধিরা সামারাভিক্রামা ও ডান-হাতি ব্যাটসম্যান রোশেন সিলভা। কাফ ইনজুরির কারণে প্রথম টেস্টে খেলতে পারছেন না অভিজ্ঞ অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুস। সে কারণেই রোশেনকে দলভূক্ত করা হয়েছে। সামারাভিক্রামা ৪৭.০৪ গড়ে ৬টি সেঞ্চুরিসহ প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেটে ২০৭০ রান করেছেন। এর মধ্যে আরো রয়েছে ১১টি হাফ সেঞ্চুরি। কোল্টস ক্রিকেট ক্লাবের হয়ে তিনি প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেট খেলে থাকেন। ২০১৪ সালের অনুর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে তিনি লংকানদের হয়ে ইনিংস ওপেন করেছিলেন। ওই আসরে চারটি হাফ-সেঞ্চুরিসহ তিনি ৬ ম্যাচে শ্রীলঙ্কার হয়ে সর্বোচ্চ ২৬৫ রান করেছিলেন।

অন্যদিকে ২৮ বছর বয়সী রোশেন প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেটে একজন অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান। এ পর্যন্ত ৪৮.১৯ গড়ে ১৮টি সেঞ্চুরি ও ২৬টি হাফ-সেঞ্চুরিসহ তিনি ৬ হাজারেরও বেশি রান সংগ্রহ করেছেন।

দলের নেতৃত্বে যথারীতি থাকছেন দিনেশ চান্ডিমাল। অন্যদিকে নতুন সহ-অধিনায়ক মনোনীত হয়েছেন লাহিরু থিরিমান্নে। আগামী ২৮ সেপ্টেম্বর আবু ধাবীর শেখ জায়েদ স্টেডিয়ামে দুই ম্যাচ সিরিজের প্রথম টেস্ট শুরু হবে। দ্বিতীয় টেস্ট দুবাই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ৬ অক্টোবর থেকে মাঠে গড়াবে। এরপর রয়েছে পাঁচ ম্যাচের ওয়ানডে ও তিন ম্যাচের টি-২০ সিরিজ।

শ্রীলঙ্কা স্কোয়াড : দিনেশ চান্ডিমাল (অধিনায়ক), লাহিরু থিরিমান্নে (সহ-অধিনায়ক), দিমুথ করুনারত্নে, কৌশাল সিলভা, কুশাল মেন্ডিস, সাধিরা সামারাভিক্রামা, রোশেন সিলভা, নিরোশান ডিকবেলা (উইকেটরক্ষক), রাঙ্গানা হেরাথ, লক্ষন সান্দাকান, দিলরুয়ান পেরেরা, সুরাঙ্গা লাকমাল, নুয়ান প্রদীপ, বিশ্ব ফার্নান্দো ও লাহিরু গামাগে।

স্ট্যান্ড-বাই : ধনঞ্জয় ডি সিলভা, জেফরি ভানডারসে, আকিলা ধনঞ্জয়, লাহিরু কুমারা, ডাসুন শাঙ্কা।