বিশ্ববাজারে হ্রাস পেয়েছে খাদ্যপণ্যের দাম

টানা তিন মাস বৃদ্ধির পর বিশ্ববাজারে আবারও কমল খাদ্যপণ্যের দাম। এ বছর বিশ্বে খাদ্যশস্য উৎপাদন হবে দুই হাজার ৬১১ মিলিয়ন মেট্রিক টন। যা যেকোনো সময়ের চেয়ে সর্বোচ্চ।

জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থা (এফএও) জানায়, গত আগস্ট মাসে সার্বিক খাদ্য সূচক জুলাইয়ের চেয়ে ১.৩ শতাংশ কমে হয়েছে ১৭৬.৬ পয়েন্ট। বিশেষ করে গমসহ অন্যান্য খাদ্যশস্যের দাম কমার কারণেই বাজারে এর সার্বিক প্রভাব পড়েছে। রপ্তানিকারক দেশগুলোতে বাম্পার ফলনের সম্ভাবনায় খাদ্যের মজুদ বৃদ্ধিরও আশা করা হচ্ছে।

এফএও জানায়, রাশিয়া, ব্রাজিলসহ বেশ কিছু দেশে গম উৎপাদন বাড়বে। এর পাশাপাশি ২০১৭ সালে চাল উৎপাদনও বেড়ে রেকর্ড সর্বোচ্চ হবে। সংস্থা জানায়, গত মাসে বিশ্ববাজারে মাংসের দাম কমেছে ১.২ শতাংশ ও চিনির দাম কমেছে ১.৭ শতাংশ। ব্রাজিল, থাইল্যান্ড ও ভারতে আখ উৎপাদন বৃদ্ধির পাশাপাশি আন্তর্জাতিক বাজারে চিনির চাহিদা কম থাকায় এ খাদ্যপণ্যের দাম কমেছে বলে জানায় এফএও।

তবে গত মাসে ভোজ্য তেলের দাম বেড়েছে ২.৫ শতাংশ। বিশেষ করে পাম তেল, সয়াবিন ও সূর্যমুখী তেলের দাম বেড়েছে। বেড়েছে দুগ্ধপণ্যের দামও। বিশেষ করে ইউরোপ ও উত্তর আমেরিকায় দুগ্ধপণ্যের চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় দাম বেড়েছে।গত জুলাই মাসে বিশ্ববাজারে খাদ্যপণ্যের দাম বাড়ে ২.৩ শতাংশ, জুনে বেড়েছিল ৪.২ শতাংশ এবং মে মাসে ২.২ শতাংশ।