কুর্দিস্তানের গণভোট হবে রাজনৈতিক আত্মহত্যা

ইরাকের আধা-স্বায়ত্বশাসিত কুর্দিস্তান অঞ্চলের বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়ার প্রশ্নে আসন্ন পরিকল্পিত গণভোট স্থগিত রাখার আহ্বান জানিয়েছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী হায়দার আল এবাদি। তিনি দেশটির সাংবিধানিক আদালতে পাঠানো চিঠিতে প্রস্তাবিত গণভোটকে বেআইনি অভিহিত করে অবিলম্বে তা স্থগিত করার যে নির্দেশ দিয়েছেন তার সঙ্গে সাংবিধানিক আদালতেরও সম্মতি রয়েছে।

কুর্দিস্তানে গণভোট স্থগিত করার জন্য প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ এবং তার প্রতি সাংবিধানিক আদালতের সমর্থন কুর্দি কর্মকর্তাদের জন্য ইরাকি জনগণের পক্ষ থেকে কড়া বার্তা হিসেবেই দেখা হচ্ছে। বিশ্লেষকরা বলছেন, প্রধানমন্ত্রী হায়দার আল এবাদির এ নির্দেশ কুর্দিস্তানের কর্মকর্তাদের জন্য সরাসরি হুঁশিয়ারি এবং বেআইনি গণভোটের মাধ্যমে কুর্দিস্তান এলাকাকে ইরাক থেকে বিচ্ছিন্ন করার ষড়যন্ত্র কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে গ্রহণযোগ্য নয়। ইরাকের সব রাজনৈতিক দল ও কুর্দিস্তানসহ দেশের অন্যান্য এলাকার জন প্রতিনিধিরাও ওই গণভোটের বিরোধিতা করেছেন।

নিঃসন্দেহে বিচ্ছিন্নতা প্রশ্নে কুর্দিস্তানের গণভোটের কোনো সাংবিধানিক ভিত্তি নেই এবং গুটি কয়েক কুর্দি নেতার এ ধরণের ধ্বংসাত্মক পদক্ষেপেরও কোনো ব্যাখ্যা থাকতে পারে না। ইরাক সরকার সবসময়ই সংবিধানের আওতায় কুর্দিস্তানের জনগণ ও জাতীয় স্বার্থের জন্য হুমকি হয়ে দাঁড়ায় এমন যে কোনো কর্মকাণ্ড মোকাবেলা করে এসেছে। প্রধানমন্ত্রী হায়দার আল এবাদি স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন, ‘ইরাক থেকে বিচ্ছিন্ন হওয়ার জন্য কুর্দিস্তান এলাকায় বেআইনি গণভোটের কোনো সুযোগই দেয়া হবে না।’

বিশ্লেষকরা বলছেন, প্রধানমন্ত্রীর এ বক্তব্য কুর্দিস্তানের কর্মকর্তাদের জন্য স্পষ্ট বার্তা যারা কিনা ইরাকের সংবিধানকে উপেক্ষা করে এসেছে। ইরাকের সংবিধানে জাতীয় ঐক্য, অখণ্ডতা ও শৃঙ্খলা বজায় রাখার ওপর ব্যাপক গুরুত্বারোপ করা হয়েছে। স্বায়ত্বশাসিত কুর্দিস্তান এলাকার কিছু নেতা কেবল দলীয় স্বার্থে এবং কয়েকটি বৃহৎ শক্তির ষড়যন্ত্র বা নীল নক্সা বাস্তবায়নের জন্য বিচ্ছিন্নতা প্রশ্নে প্রস্তাবিত গণভোটকে ব্যবহার করার চেষ্টা করছে।

গত কয়েক বছরে বিচ্ছিন্নতাকামী নেতারা বেশ ক’বার গণভোট দেয়ার চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক প্রচণ্ড বিরোধিতার কারণে তাদের ওই প্রচেষ্টা শেষ পর্যন্ত ব্যর্থ হয়। এ অবস্থায় কুর্দি কর্মকর্তারা ইরাক থেকে আলাদা হয়ে যাওয়ার প্রশ্নে গণভোটের যে প্রস্তুতি নিচ্ছেন তা শেষ মুহূর্তে বাতিল হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলেও অনেকে মনে করছেন।

এদিকে, ইরাকের রাজনৈতিক মহল কুর্দিস্তানে গণভোট স্থগিত করে আলোচনার মাধ্যমে সমাধানে পৌঁছার আহ্বান জানিয়েছেন। কিন্তু অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক সমাজের প্রচণ্ড বিরোধিতা সত্বেও কুর্দিস্তানের স্বশাসন কর্তৃপক্ষের প্রেসিডেন্ট মাসুদ বারাজানি গণভোট সম্পন্ন করার ব্যাপারে তার সিদ্ধান্তে অটল রয়েছেন।

এ অবস্থায় আর্থ-রাজনৈতিক ও নিরাপত্তা ক্ষেত্রে ওই অঞ্চলের পরিস্থিতি আরো জটিল হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। এ ছাড়া সেখানকার গণভোটকে মাসুদ বারাজানির জন্যও রাজনৈতিক আত্মহত্যা হিসেবে মনে করছেন অনেকে।