আতপ চালে আগ্রহ নেই ক্রেতাদের

 দিনের অনেকটা সময় ক্রেতাশূন্যই থাকে খোলাবাজারে (ওএমএস) চাল বিক্রির ট্রাকগুলো। আতপ চালে আগ্রহ নেই ক্রেতাদের।

গত রোববার থেকে রাজধানী এবং দেশের সব জেলা শহরে একযোগে ওএমএসের চাল বিক্রি শুরু হয়েছে। জেলা শহরগুলোতে শুধু চাল বিক্রি হলেও রাজধানীর ১২০ কেন্দ্রে চাল ও আটা বিক্রির সিদ্ধান্ত হয়। কেন্দ্রপ্রতি বরাদ্দ এক টন চাল ও দুই টন আটা। প্রথম দিন রোববার ১০৯টি স্থানে চাল ও আটা বিক্রি করা হয়। দ্বিতীয় দিনে ১২০টির সব কেন্দ্রেই বিক্রি শুরুর কথা ছিল। তবে অধিদপ্তর সূত্র জানিয়েছে, বিভিম্ন কারণে দ্বিতীয় দিনে ৯৬টি কেন্দ্রে ওএমএসের চাল ও আটা বিক্রি শুরু হয়েছে। ট্রাক ভাড়া না পাওয়া, লেবার না পাওয়া এবং টাকা জমা দিতে ব্যর্থ হওয়াসহ নানা কারণে ডিলাররা ওএমএসের চাল বিক্রি করতে পারেননি।

এ নিয়ে ওএমএসের ডিলাররাও ক্ষুব্ধ, হতাশ। অনেক ডিলার চাল তুলতেই অনীহা দেখাচ্ছেন। ওএমএসে চাল বিক্রির দ্বিতীয় দিনে বিভিম্ন কারণ দেখিয়ে শুধু রাজধানীতেই কমপক্ষে ২৪ ডিলার চাল তোলেননি। তবে সংশ্নিষ্টরা জানাচ্ছেন, ওএমএসে আতপ চালই বিক্রি করতে হবে। কারণ বিভিম্ন দেশ থেকে আমদানি করা চালের ৮০ ভাগই আতপ। ওইসব দেশে আতপ চালই উৎপম্ন হয়। তাই ডিলার বা ক্রেতার চাহিদা পূরণে আপাতত সিদ্ধ চাল সরবরাহ করা সরকারের পক্ষে সম্ভব নয়।

সরেজমিন রাজধানীর বিভিম্ন পয়েন্টে এবং ডিলারদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ওএমএসে বিক্রি করতে আতপ চাল দেওয়া হচ্ছে। এই আতপ চাল কেনায় ক্রেতাদের আগ্রহ খুবই কম।