রোহিঙ্গা নির্যাতন বন্ধের আহ্বানে চলচ্চিত্র পরিবারের মানববন্ধন

আজ সোমবার ১৮ সেপ্টেম্বর সকাল ১১ টায় রাজধানীর প্রেস ক্লাবের সামনে বর্তমানে মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের ওপর নির্যাতনের প্রতিবাদে চলচ্চিত্র পরিবারের ডাকা মানববন্ধনে হাজির হয়েছিলেন শিল্পী কলাকুশলীরা। চলচ্চিত্রের ১৮ সংগঠনের সমন্বয়ে গঠিত চলচ্চিত্র পরিবারের সাথে সাধারণ জনতার উপস্থিতিও দেখা যায়।

আজ রোহিঙ্গাদের উপর মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে সহিংসতা, নির্যাতন, হত্যা এবং তাদের বসতবাড়িতে অগ্নিসংযোগের প্রতিবাদে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র পরিবার। রুপালি পর্দার তারকাদের দেখে ভিড় জমান হাজারো উৎসুক জনতা। তারাও চলচ্চিত্র পরিবারের মানববন্ধনে অংশ নেন। রোহিঙ্গাদের উপর নির্যাতন বন্ধ করতে আহ্বান জানিয়ে স্লোগান দেন।

চলচ্চিত্রশিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক চিত্রনায়ক জায়েদ খান বলেন, রোহিঙ্গাদের উপর নির্যাতন বন্ধের দাবিতে এই মানববন্ধনের আয়োজন করা হয়।

চিত্রনায়ক রিয়াজ বলেন, ‘মন ভেঙ্গে যায় মানুষ হয়ে মানুষের এমন দুর্দশা দেখতে। আমি গর্ববোধ করি বাংলাদেশের নাগরিক হিসেবে। কারণ, সারা বিশ্ব যখন ভাবছে তখন আমার ছোট্ট দেশটি লাখ লাখ বাস্তুহারা মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে। আমাদের নেতা শেখ হাসিনাকে শ্রদ্ধা জানাই এমন মানবিক অবস্থানের জন্য। আর নির্যাতিত, অসহায় রোহিঙ্গাদের প্রতি সমবেদনা জানাই। অং সান সূচির প্রতি ধিক্কার জানাই। বিশ্বের মানবতাবাদী সংগঠনগুলোকে রোহিঙ্গাদের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান জানাই। বিশ্ববাসীকে জেগে ওঠার আহ্বান জানাই।’

চলচ্চিত্র পরিবারের আহ্বায়ক চিত্রনায়ক ফারুক নিজের বক্তব্যে বলেন, ‘বাপদাদার ভিটেমাটি থেকে রোহিঙ্গাদের উচ্ছেদ করে দেয়া হয়েছে। তারা প্রাণ বাঁচাতে বর্ডার ক্রস করে আমাদের দেশে আসছে। আমাদের দেশের প্রতিটি মানুষ অন্যকে ভালোবাসতে জানে বলেই তাদের আশ্রয় দিচ্ছে। মিয়ানমারের নেত্রী সুচি হচ্ছেন একজন পুতুল। আর পুতুলের হাতে কখনো নোবেল পুরস্কার দিতে নেই। ধিক্কার জানাই এমন নিষ্ঠুর সরকার প্রধানকে।’ নায়ক ফারুক আরো বলেন, ‘রোহিঙ্গাদের পাশে দাঁড়ানোর জন্য দেশনেত্রী শেখ হাসিনাকে সাধুবাদ জানাই। এটা নিয়ে কোনো রাজনৈতিক নেতাদের রাজনীতিগত কাদা ছোঁড়াছুড়ি না করার আহ্বান জানাচ্ছি।’

চিত্রপরিচালক সমিতির সভাপতি মুশফিকুর রহমান গুলজার বলেন, ‘মেনে নেয়া খুবই কষ্টকর এত এত মানুষ অমানবেতর জীবন যাপন করছে। আমরা এর সুষ্ঠু সমাধান চাই দ্রুত। মিয়ানমারের পাষণ্ড সরকারের প্রতি ঘৃণা রইলো।’

এই মানববন্ধনে আরো উপস্থিত ছিলেন শিল্পী সমিতির সভাপতি মিশা সওদাগর, সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খান, ফেরদৌস, রোজিনা, সাইমন, শান আরাফ, মহাসচিব বলিউল আলম খোকন, বজলুর রশিদ চৌধুরী, মোহাম্মদ হোসেন জেমি প্রমুখ। তারা প্রত্যেকেই রোহিঙ্গাদের উপর জাতিগত নিধন অভিযান, নিপীড়নের অবসান ও গণহত্যা বন্ধে অবিলম্বে জাতিসংঘের কার্যকর হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

একই সঙ্গে চলচ্চিত্রের শিল্পী-নির্মাতারা রোহিঙ্গাদের ওপর নির্যাতন বন্ধে করে দ্রুত মিয়ানমারে ফিরিয়ে নেওয়ারও দাবি জানান।