ফরিদপুরে ওএমএস এর আতপ চাল নিয়ে হতাশ ক্রেতারা

সারা দেশের ন্যায় ফরিদপুর শহরে খোলা বাজারে চাল বিক্রি শুরু করেছে সরকার। আজ সোমবার সকাল থেকে ১০টি কেন্দ্রের মাধ্যমে জেলা শহরে কার্যক্রম শুরু হয়েছে।

কিন্তু ফরিদপুরে সরকারী ওএমএস এর এ চাল নিয়ে হতাশ ক্রেতারা। সরকারের দেওয়া হতদরিদ্রদের ভোগান্তি কমাতে এসব চাল এখন কিনতে চাচ্ছে না জেলার দরিদ্র জনগোষ্ঠি। ফলে জেলার চাল বাজারে ইতিমধ্যে নেতিবাচক প্রভাব পড়তে শুরু করেছে। চালের মূল্য উর্দ্ধমুখি হওয়ায় সরকারের নেয়া এ কর্মসূচী মুখথুবড়ে পরার উপক্রম হয়ে পড়েছে। সাথে সাথে কর্মসূচির সুফলের আশায় থাকা জেলার মধ্যবিত্ত পরিবারগুলোর ভোক্তাগণ দিশেহারা হয়ে পড়েছে ।

ফরিদপুরের খাদ্য অধিদপ্তর থেকে জানা গেছে, আজ সোমবার সকাল থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে বিক্রয় শুরু হয়েছে। শহরের হেলিপ্যাড বাজার, চক বাজার, অম্বিকাপুর বাজার, টেপাখোলা বাজার ও চুনাখাটা বাজারে প্রতি কেজি ৩০ টাকা হারে জনপ্রতি ৫ কেজি করে চাল দেওয়া হচ্ছে। মোট ১ শত ২০ টন চাল আগামী ১৫ অক্টোবর পর্যন্ত চলবে তাদের কার্যক্রম।তাঁর ধারাবাহিকতায় আজকে ডিলার কর্তৃক উত্তোলিত ৫০০০ কেজি চালের বিক্রি হয়েছে মাত্র ৪৬৫ কেজি।

জেলার হত দরিদ্ররা জানায়, জেলার মানুষ সেদ্ধ চাল খেয়ে অভ্যন্ত। জন্মলগ্ন থেকেই তারা এ ধরনের চালের ভাত খেয়ে আসছে। জেলায় উৎপাদিত সকল চালই সিদ্ধ চাল। জেলার চাহিদানুযায়ী সরকার সব সময়ই সিদ্ধ চাল সরবরাহ করে আসছে। সোমবার থেকে জেলায় ওএমএস এর সিদ্ধ চালের পরিবর্তে দেওয়া হচ্ছে আতব চাল। জেলার হত দরিদ্ররা সরকারের দেওয়া এ চাল নিতে অনাগ্রহ প্রকাশ করছে। ফলে শহরের সবকটি ডিলারে ঘড় ফাকা দেখা গেছে। ডিলারের ঘরে চাল মজুত রয়েছে। চাল কিনতে এসে এসব আসহায় পরিবারের সদস্যরা আতব চাল দেখে ফিরে যাচ্ছে।

ফরিদপুরের খাদ্য অধিদপ্তরের ভারপ্রাপ্ত জেলা কর্মকর্তা গোপাল চন্দ্র দত্ত জানান, এ অঞ্চলের মানুষ সিদ্ধ চালের ভাত খেয়ে অভ্যস্ত। তারা আতব চাল খেতে পারে না। ফলে আমাদের গোডাউনের চাল যদি পূর্বাঞ্চলে পাঠানো হয় হলে তাদের উপকার হবে। সেখানে আতব চালের চাহিদা রয়েছে। আর এখানে আতব চাল কেউ কেই কিনে তারা আবার বাজারে বিক্রি করে সিদ্ধ চাল নিচ্ছে। এতে সরকার হত দরিদ্রদের দারিদ্রতা ঘোচাতে যে উদ্যোগ নিয়ে সেটা বিফলে যাওয়ার আশংক রয়েছে। সরকার জেলায় সিদ্ধ চালের সরবরাহ করলে একদিকে দরিদ্ররা উপকৃত হবে অন্যদিকে চালের বাজার কিছুটা হলেও স্থিতিশীল থাকবে।

হারুন-অর-রশীদ, ফরিদপুর প্রতিনিধি