পরকীয়া সন্দেহে মৃত্যুদণ্ডের শাস্তি পেল আফসানা

শনিবার কোতোয়ালি থেকে আফসানা আকতার শান্ত নামে এক গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। সকালে কোতোয়ালি থানাধীন আলকরণ এলাকার দ্বিতলা ভবন থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়। ওই এলাকার শাহ আলম মিঠুর স্ত্রী ছিলেন নিহত শান্ত। লাশ উদ্ধারের পর থেকে মিঠু পলাতক রয়েছেন।

প্রতিবেশীদের বরাত দিয়ে পুলিশ জানায়, পরকীয়া সংক্রান্ত বিষয়ে স্ত্রীকে সন্দেহ করতেন স্বামী মিঠু। এ নিয়ে বিভিন্ন সময় তাদের মধ্যে ঝগড়া হয়েছে। পরবর্তীতে তা সমাধান করেছেন প্রতিবেশী ও স্বজনরা। গত রাতেও তাদের মধ্যে ঝগড়া হয়। নগর পুলিশের কোতোয়ালি জোনের সহকারী কমিশনার মো. জাহাঙ্গীর আলম বলেন, তার মরদেহ খাটের ওপর পড়েছিল। গলায় আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। তবে শরীরে কোনো আঘাতের চিহ্ন নেই। শান্ত আত্মহত্যা করেছে নাকি তাকে হত্যা করা হয়েছে তা নিশ্চিত নই। লাশের ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন পাওয়ার পর মৃত্যুর কারণ বলতে পারব। ’

তিনি বলেন, ঘটনার পর থেকে পাঁচ বছরের শিশু সন্তানকে নিয়ে পলাতক রয়েছেন মিঠু। তাকে আটক করা গেলে অনেক কিছুই পরিষ্কার হয়ে যাবে। এদিকে, শান্তর বাবা বেলাল হোসাইন দাবি করেছেন, মিঠু শান্তকে প্রায়ই যৌতুকের জন্য মারধর করতেন। শান্তকে নির্যাতন করে হত্যা করেছেন স্বামী মিঠু। তার শরীরে আঘাতের অনেক চিহ্ন রয়েছে।