গৃহবধুর শ্লীলতাহানির দায় দুই যুবলীগ নেতা গ্রেফতার

ফেনীর সোনাগাজীতে গৃহবধুর শ্লীলতাহানি ও এক যুবককে মারধরের ঘটনায় ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতিসহ দুই যুবলীগ নেতা আবদুল কাইয়ুম রাসেল (২৬) ও এমরান হোসেনকে (২৫) গ্রেফতার করেছে পুলিশ। শনিবার উপজেলার উত্তর চরসাহাভিকারী গ্রাম থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। তাঁরা উপজেলার চর দরবেশ ইউনিয়নের উত্তর চর সাহাভিকারী গ্রামের বাসিন্দা।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, শুক্রবার দুপুরে উপজেলার চর দরবেশ ইউনিয়নের উত্তর চর সাহাভিকারী গ্রামের কাজীর হাট স্লুইস গেট এলাকায় নোয়াখালীর সেনবাগ উপজেলার নবীপুর এলাকা থেকে মাকসুদা আক্তার নামে এক গৃহবধু তার খালাতো ভাই আবুল কালামের সঙ্গে বেড়াতে আসেন। পরে তাঁরা নদী পার হওয়ার জন্য নৌকায় ওঠেন। এ সময় উত্তর চর সাহাভিকারী গ্রামের ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি আবদুল কাইয়ুম রাসেল (২৬) ও যুবলীগ নেতা এমরান হোসেন (২৫) নৌকায় গিয়ে ওই গৃহবধু ও তার খালাতো ভাইকে জোর করে নৌকা থেকে নামিয়ে পাশের একটি বাড়িতে নিয়ে আটক করে মারধর করতে থাকে। এ সময় তাদের কাছ থেকে একটি স্বর্ণের চেইন, কানের দুল, ২টি মোবাইল ফোন,  নগদ ৬ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয়া হয়। এ ঘটনায় রাতে গৃহবধূ মাকসুদা আক্তার বাদী হয়ে দুই যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ করেন।

সোনাগাজী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. হুমায়ুন কবির গৃহবধুর শ্লীলতাহানী ও মারধরের ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, এ ঘটনায় দুইজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। চর দরবেশ ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মাঈন উদ্দিন পূর্বপশ্চিমকে বলেন, আব্দুল কাইয়ুম চর সাহাভিকারী ১ নম্বর ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি ও এমরান হোসেন যুবলীগ কর্মী। তিনি বলেন, তাদের গ্রেফতারের বিষয়টি তিনি শুনেছেন। তবে কি কারণে তারা গ্রেফতার হয়েছে সে বিষয়ে তিনি অবগত নন।

উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক ও চর দরবেশ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম ভূট্ট বলেন, রাসেল ও এমরাম যুবলীগের কিছুনা। তারা খারাপ প্রকৃতির লোক। এদের অত্যাচারে কাজীর হাট স্লুইস গেট এলাকার মানুষ অতিষ্ট। তারা প্রতিনিয়ত কাজীর হাট স্লুইস গেট এলাকায় আসা নারী-পুরুষদেরকে হয়রাণি করে থাকে।