দিনাজপুরে এবারে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে দেড় লক্ষাধিক কৃষক

দিনাজপুর জেলা ধানের জেলা। আর এই বন্যায় পনিতে তলিয়ে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে ফসলী জমির। কৃষকদের অভিযোগ পানিতে ধানের চারা নষ্ট হয়ে গেলে দূর দুরান্ত থেকে চারা কিনে আনতে হচ্ছে। কৃষি বিভাগ বলছে এই ক্ষতি কাটিয়ে ওঠার জন্য কৃষকদের বন্যার পরবর্তী বিভিন্ন পরামর্শ প্রদান করা হচ্ছে।

দিনাজপুরে মোট ৮টি উপজেলায় বন্যার পানির নিচে তলিয়ে ছিল ১লক্ষ ২২হাজার হেক্টর জমির ফসল। এর মধ্যে ১লক্ষ ৫৭হাজার কৃষকের ৪১হাজার ৩শ ২৯ হেক্টর জমির ধানে চারা নষ্ট হয়ে গেছে। বেশ কিছু জায়গায় পানি না নামার কারনে বিনা আবাদে ফেলে রাখতে হচ্ছে। আবার যে সব জায়গায় পানি নেমে গেছে সেগুলো জমিতে নতুন করে ধানের চারা রোপন করতে দূর দূড়ান্ত থেকে তা টাকার বিনিময়ে কৃষকরা চারা সংগ্রহ করছে।

এতে করে ধান আবাদে বেশ হতাশা বিরাজ করছে কৃষকদের মাঝে। কৃষি বিভাগের তথ্য অনুযায়ী এ পর্যন্ত ১হাজার কৃষককে ধানের চারা ও ২শ ২০জন কৃষককে ধানের বীজ প্রদান করা হয়েছে। যা ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকের তুলনায় খুবই সামান্য। কৃষি বিভাগ মাঠ পর্যায়ে বিভিন্ন পরামর্শ দিয়ে গেলেও কৃষকরা দুঃশ্চিন্তায় রয়েছে ধানের ফলন নিয়ে।

এদিকে কৃষি কর্মকর্তা বলছে, কিছু কিছু ধানের জাত এখনো বীজ তালা করা সম্ভব। আগামী সেপ্টেম্বর পর্যন্ত এই ধানের বীজ বপন করলে ফলনে কোন ক্ষতি হবেনা। দিনাজপুরে এবার ২লক্ষ ৩২হাজার ৮শ ৭০ হেক্টর জমিতে আমন ধানের আবাদ করা হয়েছে। এবং বন্যায় সবচেয়ে বেশী ফসলি জমি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে বিরল, সদর ও চিরিরবন্দর উপজেলায়।

ফখরুল হাসান পলাশ । দিনাজপুর প্রতিনিধি