অনুপ্রবেশকারী ১৪৫ জন রোহিঙ্গাকে মিয়ানমারে ফেরত পাঠিয়েছে বিজিবি

টেকনাফ ও উখিয়া সীমান্ত দিয়ে অনুপ্রবেশের চেষ্টাকালে ১৪৫ জন রোহিঙ্গাকে মিয়ানমারে ফেরত পাঠিয়েছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)। টেকনাফের নাফ নদী পার হয়ে অনুপ্রবেশকালে এই ১৪৫ জন রোহিঙ্গাকে মিয়ানমারে ফেরত পাঠানো হয়।

টেকনাফ ২নং বিজিবির অধিনায়ক লে. কর্নেল এসএম আরিফুল ইসলাম সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, রোববার দিবাগত মধ্যরাত থেকে সোমবার সকাল পর্যন্ত পৃথক অভিযানে ১৪৫ রোহিঙ্গাকে জলসীমানা অতিক্রম করার সময় প্রতিহত করে স্বদেশে ফেরত পাঠানো হয়। তিনি বলেন, মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে সেনা মোতায়েনকে কেন্দ্র করে বৃহস্পতিবার থেকে হঠাৎ করে রোহিঙ্গারা বাংলাদেশে অনুপ্রবেশের চেষ্টা চালায়। কোন অনুপ্রবেশকারী যাতে ঢুকতে না পারে সেজন্য সীমান্ত পয়েন্টে বিজিবি সদস্যদের নজরদারি বৃদ্ধি করা হয়েছে। গত ২৫ আগস্ট থেকে এ পর্যন্ত প্রায় ৫ শতাধিক রোহিঙ্গাকে আটকের পর মানবিক সহায়তা দিয়ে স্বদেশে ফেরত পাঠায় বিজিবি।

গত সপ্তাহে মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে ৩০টি পুলিশ ফাঁড়ি ও একটি সেনাঘাঁটিতে সমন্বিত হামলা চালায় দুর্বৃত্তরা। এতে অন্তত ৮৯ জন নিহত হন। নিহতদের মধ্যে ১২ জন নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্য এবং বাকি ৫৯ জন ‘রোহিঙ্গা মুসলিম বিদ্রোহী’ বলে দেশটির সরকার ও সেনাবাহিনী নিশ্চিত করে।

বিজিবি সূত্র জানায়, টেকনাফের নাফ নদীর ঝিমংখালী, হ্নীলা ও লেদা পয়েন্ট দিয়ে আটটি নৌকায় করে মোট ৯৬ জন রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশের চেষ্টা করে। উখিয়ার স্থলপথের বিভিন্ন পয়েন্ট দিয়ে ৪৯ জন রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশের চেষ্টা চালায়। টেকনাফ ২ বিজিবির উপ-অধিনায়ক মেজর আবু রাসেল ছিদ্দিকী প্রথম আলোকে বলেন, রোহিঙ্গাবোঝাই আটটি নৌকা নাফ নদী পেরিয়ে বাংলাদেশে অনুপ্রবেশের চেষ্টা করে। বিজিবির বাধায় নৌকাগুলো মিয়ানমারে ফেরত যেতে বাধ্য হয়।