ইরানে ফিরছেন কাতারের রাষ্ট্রদূত

প্রায় ২০ মাস পর ইরানে নিযুক্ত কাতারের রাষ্ট্রদূতকে তেহরানে ফেরত পাঠানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে দোহা। ২০১৬ সালের জানুয়ারি মাসে তেহরানস্থ সৌদি দূতাবাসের সামনে উত্তেজিত জনতা বিক্ষোভ দেখানোর পর রিয়াদের প্রতি সংহতি প্রকাশ করে নিজের রাষ্ট্রদূতকে তলব করেছিল কাতার।

প্রখ্যাত সৌদি শিয়া আলেম শেখ নিমর আন-নিমরের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করার প্রতিবাদে ২০১৬ সালের জানুয়ারি মাসে ইরানের রাজধানী তেহরানস্থ সৌদি দূতাবাস ও মাশহাদে অবস্থিত সৌদি কনস্যুলেটের সামনে বিক্ষোভ দেখায় প্রতিবাদী জনতা। অবশ্য ওই বিক্ষোভের পর সৌদি আরব ইরানের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক পুরোপুরি ছিন্ন করলেও কাতার চার্জ দ্যা অ্যাফেয়ার্স পর্যায়ে তেহরানের সঙ্গে সম্পর্ক বজায় রাখে।

কাতারের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বুধবার এক বিবৃতিতে বলেছে, “কাতার একথা ঘোষণা করছে যে, তার রাষ্ট্রদূত নিজের কূটনৈতিক দায়িত্ব আবার শুরু করার জন্য তেহরানে ফিরে যাচ্ছেন।” গত ৫ জুন সৌদি আরবের নেতৃত্বাধীন চারটি আরব দেশ কাতারের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করে। এসব দেশের অভিযোগ, কাতার তাদের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপ করার পাশাপাশি সন্ত্রাসবাদে সমর্থন দিচ্ছে। দোহা এসব অভিযোগ অস্বীকার করে এসেছে। সৌদি আরবের নেতৃত্বাধীন চার আরব দেশ জুন মাসেই কাতারের ওপর জল, স্থল ও আকাশপথে অবরোধ আরোপ করে।

ওই অবরোধের ফলে ওই চার দেশের আকাশসীমা দিয়ে কাতারের বিমান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এ অবস্থায় ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরান তার আকাশসীমাকে কাতারের বিমান চলাচলের জন্য উন্মুক্ত করে দেয়।

কাতারের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে আরো বলা হয়েছে, তেহরানের সঙ্গে সব ক্ষেত্রে সম্পর্ক ও সহযোগিতা শক্তিশালী করতে চায় দোহা। এ বিষয়ে কথা বলতে ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মাদ জাওয়াদ জারিফের সঙ্গে টেলিফোনে কথা বলেন কাতারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শেখ মোহাম্মাদ বিন আব্দুররহমান আলে সানি।