ট্রাম্পের বক্তব্যের কড়া জবাব দিল পাকিস্তান

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের পাকিস্তান বিরোধী বক্তব্যে ‘হতাশা’ প্রকাশ করেছে ইসলামাবাদ। একইসঙ্গে সন্ত্রাসী গোষ্ঠীগুলোকে সহায়তা দেয়ার অভিযোগও অস্বীকার করেছে পাকিস্তান।

পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতি প্রকাশ করে বলেছে, “সন্ত্রাসবাদের মাধ্যমে বিশ্বের অন্য কোনো দেশ পাকিস্তানের সমান ক্ষতিগ্রস্ত হয়নি। অনেক সময় পাকিস্তানে চালানো সন্ত্রাসী হামলার পরিকল্পা বিদেশে বসে করা হয়। কাজেই সন্ত্রাস বিরোধী যুদ্ধে পাকিস্তানের সরকার ও জনগণ যে আত্মত্যাগ করেছে আমেরিকার পক্ষ থেকে তা উপেক্ষা করার মানসিকতা অত্যন্ত হতাশাব্যাঞ্জক।”

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প পাকিস্তানকে সন্ত্রাসবাদের সহযোগিতা করার দায়ে অভিযুক্ত করার পর ইসলামাবাদ ওই প্রতিক্রিয়া জানাল। ট্রাম্প গতকাল এক বক্তৃতায় বলেন, পাকিস্তান সন্ত্রাসীদের জন্য ‘যে অভয়ারণ্য তৈরি করে দিয়েছে’ সে ব্যাপারে ওয়াশিংটন আর নীরব থাকতে পারে না। ট্রাম্প আরো বলেন, “ইসলামাবাদের উচিত আফগানিস্তানে সন্ত্রাস বিরোধী যুদ্ধে ওয়াশিংটনকে সহযোগিতা করা। কারণ, আমেরিকা এই খাতে পাকিস্তানকে শত শত কোটি ডলার অর্থসাহায্য দেয়। এ অবস্থায় পাকিস্তান মার্কিন সরকারকে সহযোগিতা না করে সন্ত্রাসীদেরকে অভয়ারণ্য তৈরি করে দিয়েছে।”

মার্কিন প্রেসিডেন্টের এই কঠোর বক্তব্যের জবাবে পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে বলা হয়েছে, দেশটি সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধে আন্তর্জাতিক সমাজকে সক্রিয় সহযোগিতা করছে। বিবৃতিতে বলা হয়, “নীতিগত দিক দিয়ে পাকিস্তান তার ভূমিকে কোনো বিদেশি রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে ব্যবহার করতে দেয় না। অভয়ারণ্যের মতো ভুল শব্দ প্রয়োগের পরিবর্তে আমেরিকার উচিত সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে পাকিস্তান যে যুদ্ধ করছে তাতে শামিল হওয়া।”

পাক পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এই বিবৃতি প্রকাশের আগে ইসলামাবাদের নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত ডেভিডে হেইলের সঙ্গে পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী খাজা মুহাম্মাদ আসিফ বৈঠক করেন। বৈঠকে পাক পররাষ্ট্রমন্ত্রী জানান, তার দেশ আফগানিস্তানে শান্তি ও স্থিতিশীলতা প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে কাজ করছে।