আগামী ৩১ অগাস্ট থেকে শুরু হবে পবিত্র হজ

চাঁদ দেখা সাপেক্ষে বুধবার থেকে সৌদি আরবে শুরু হয়েছে হিজরি পঞ্জিকার জিলহজ মাস, সেই হিসেবে আগামী ৩১ অগাস্ট অনুষ্ঠিত হবে হজ। সৌদি আরবের সুপ্রিম কোর্টের এক বিজ্ঞপ্তিতে একথা জানানো হয়েছে।

এতে বলা হয়, আগামী ৩০ অগাস্ট ফজর থেকে শুরু হয়ে ২ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত হজের যাবতীয় কার্যক্রম চলবে। সে অনুযায়ী সৌদি আরবে ১ সেপ্টেম্বর ঈদুল আজহা অনুষ্ঠিত হবে। চলতি বছর ২৫ লাখ মুসল্লি হজ পালন করবে বলে জানিয়েছে সৌদি হজ মন্ত্রণালয়। হজে আসা মুসল্লিরা ৮ জিলহজ বা ৩০ অগাস্ট মক্কা থেকে মিনার উদ্দেশে রওনা হবেন। সেখানে ৫ ওয়াক্ত নামাজ আদায়ের পর ৩১ অগাস্ট অনুষ্ঠিত হবে হজ।

ওইদিন ফজরের নামাজের পর থেকে বিশ্বের নানা প্রান্ত থেকে আসা ২৫ লাখ ধর্মপ্রাণ মুসলমান আরাফাতের ময়দানে সমবেত হতে থাকবেন। স্থানীয় সময় বেলা ১১টা থেকে দুপুর ১২টার মধ্যে আরাফাত ময়দানের মসজিদে নামিরা থেকে হজের খুৎবা দেওয়া হবে। খুৎবা শেষে এক ইকামতে যোহর এবং আসরের নামাজ একসঙ্গে আদায় করবেন হাজিরা।

সূর্য পশ্চিম দিকে হেলে যাওয়ার পর হাজিরা আরাফা থেকে মুজদালিফার উদ্দেশে রওনা হবেন। মুজদালিফায় গিয়ে মাগরিব এবং ঈশার নামাজ একসঙ্গে আদায়ের পর সেখানে খোলা আকাশের নিচে রাতযাপন করবেন তারা। মুজদালিফায় থাকা অবস্থায় শয়তানকে প্রতীকী পাথর নিক্ষেপের জন্য ছোট ছোট ৭২টি পাথর সংগ্রহ করবেন।

১০ জিলহজ বা ১ সেপ্টেম্বর মুজদালিফায় ফজরের নামাজ আদায় করে সূর্যোদয়ের পর মিনায় পৌঁছে বড় জামারা (বড় শয়তান)কে সাতটি পাথর নিক্ষেপ করবেন। সেখানে থেকে ফিরে পশু কোরবানি দিয়ে মাথার চুল মুণ্ডন করে ইহরাম (পরনের সাদা কাপড়) খুলে স্বাভাবিক পোশাক পরে মক্কায় গিয়ে কাবা শরীফ তাওয়াফ করবেন। কাবার সামনের সাফা ও মারওয়া পাহাড়ে সাতবার দৌড়াবেন। সেখান থেকে তারা আবার মিনায় যাবেন। সেখানে আরও এক বা দুইদিন অবস্থান করে হজের অন্য আনুষঙ্গিক কাজ শেষ করবেন।

মিনার কাজ শেষে মক্কায় বিদায়ী তাওয়াফ করার পর যারা মদিনায় যাননি, তারা মদিনায় হযরত মোহাম্মদ (স.) কবর জিয়ারত করতে যাবেন।