দিনাজপুরে আশ্রায় কেন্দ্র থেকে ঘরে ফিরছে মানুষ

দিনাজপুরে বন্যার পানি নেমে গেলেও গৃহহারা হয়ে অনেকে পথে নেমেছে। আশ্রয় কেন্দ্র থেকে বাড়ি ফিরে এলেও থাকার মত কোন অবস্থা নেই। সর্বনাশা বন্যায় ভাসিয়ে নিয়ে গেছে সব কিছু। সব হারিয়ে দিশে হারা হয়ে আশ্রয় নিয়েছে গাছ তলায়। অনেকে চেষ্টা করে যাচ্ছে মাথার উপর একটু ছাদ দেবার, আবার অনেকে তাকিয়ে আছে একটু সাহায্যের আশায়।

দিনাজপুরে বন্যায় ব্যাপক ক্ষয় ক্ষতি হলেও সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হয়েছে ভেঙ্গে যাওয়া বাঁধের নিকটস্থ ঘর বাড়ি। এসব বাড়ি থেকে অনেকে ঘরের মালামাল নিরাপদ জায়গায় নিয়ে যেতে পারেনি। হঠাৎ বাঁধ ভেঙ্গে পানির  ভাসিয়ে নিয়ে যায় সব। শুধু জীবনটুকু নিয়ে কোনমতে পালিয়ে যেতে বাধ্য হয় অনেকে।

বন্যায় দিনাজপুর সদরের বিভিন্ন এলাকার মাটির বাড়ি গুলো ধসে গিয়ে শুধু চালা পড়ে রয়েছে। আবার অনেক জায়গায় ঘরের চালা সহ ভেসে নিয়ে বিলিন হয়ে গেছে। বন্যায় এই ক্ষতিগ্রস্থ মানুষ গুলো এখন চেয়ে আছে সরকারী সহযোগিতার দিকে।

সদরের কশবার রাশেদ নামের এক উদ্ধারকারী ও সমাজসেবী বলেন, দিনাজপুর মাহুতপাড়ায় শহররক্ষা বাধ ভেঙ্গে যখন কশবায় প্রথম হানা দেয়। ঠিক সেই সময় বন্যায় কবলিত মানুষদের পাশে স্থানীয় বেশ কিছু যুবক সহ আমরা কয়েক জন সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেই। এবং আমরা বন্যার্তদের নিরাপদ আশ্রয়ে নিতে সাহায্য করি।

দিনাজপুর সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুর রহমান বলেন, মাটির বাড়ি সহ যেসব বাড়ি বন্যায় ক্ষতি হয়েছে, সেগুলো পৌরসভা ও ইউনিয়নের মাধ্যমে তালিকা করা হচ্ছে। খুব তারাতারি তাদের পূনর্বাসনের ব্যাবস্থা করা হবে। দিনাজপুর জেলায় সদর ও বিরল উপজেলা সবচেয়ে বেশী ক্ষতি হয়েছে। দুই উপজেলায় হাজার হাজার ঘর বাড়ি বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ হয়।

ফখরুল হাসান পলাশ,দিনাজপুর প্রতিনিদি