বন্যায় পানিতে ডুবে একদিনে ১১ জনের মৃত্যু

দেশের বন্যা দুর্গত এলাকায় পানিতে ডুবে শিশু মৃত্যুর আতঙ্ক বিরাজ করছে। সংশ্লিষ্ট এলাকায় নানা সতর্কতা অবলম্বন স্বত্ত্বেও প্রতিদিনই কোথাও না কোথাও পানিতে ডুবে মৃত্যুর সংবাদ পাওয়া যাচ্ছে। সরকারি তথ্যানুসারে, গত শুক্রবার (১৮ আগস্ট) একদিনেই পানিতে ডুবে ১১ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ ছাড়া আহত হয়েছেন আরও ১১ জন।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের ন্যাশনাল ক্রাইসিস ম্যানেজমেন্ট সেন্টার ও কন্ট্রোল রুমের (১৮ আগস্ট) তথ্যানুসারে, পানিতে ডুবে জামালপুরে ৫ জনের মৃত্যু ও ৫ জন আহত হয়েছেন। এ ছাড়া গাইবান্ধায় ৩ জনের মৃত্যু ও ৩ জন আহত, রংপুরে ১ জনের মৃত্যু এবং নওগাঁয় ২ জনের মৃত্যু ও ৩ জন আহত হয়েছেন।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের তথ্যানুসারে বর্তমানে দেশের ১৯ জেলায় বন্যা আক্রান্ত। জেলাগুলো হলো- সিলেট, মৌলভীবাজার, জামালপুর, বগুড়া, সিরাজগঞ্জ, কুড়িগ্রাম, লালমনিরহাট, নীলফামারি, টাঙ্গাইল, গাইবান্ধা, দিনাজপুর, পঞ্চগড়, সুনামগঞ্জ, জয়পুরহাট, রংপুর, নওগাঁ, রাজবাড়ী, শেরপুর ও হবিগঞ্জ।

এসব জেলার ১৫৮টি উপজেলার মধ্যে ১০৮টি উপজেলাই বন্যা দুর্গত। মোট ৩৫৭টি আশ্রয় কেন্দ্র রয়েছে এসব এলাকায়। এ ছাড়া ১৮ আগস্ট পর্যন্ত বন্যা দুর্গত এলাকায় ৫৩৭ জন ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়েছেন। তবে ১ হাজার ৭৯৭টি মেডিকেল টিম এসব এলাকায় কাজ করছেন।

ন্যাশনাল ক্রাইসিস ম্যানেজমেন্ট সেন্টার ও কন্ট্রোল রুমের ইনচার্জ ডা. আয়েশা বেগম জানান, পানিতে ডুবে যারা মারা গেছে তাদের সিংহভাগই শিশু। এদের অধিকাংশেরই মৃত্যু দিনের বেলায় ঘটেছে। এ সময় পরিবারের পুরুষ সদস্যরা জীবিকার সন্ধানে বাইরে ও গৃহবধূরা রান্নার কাজে ব্যস্ত থাকেন। তাদের আরও সচেতন হওয়া দরকার।