কোন কোন পথ খোঁজা হচ্ছে সরকারকে হটানোর জন্য, সব জানি

ভোটে ক্ষমতায় যাওয়ার ‘রঙিন খোয়াব’ উবে গেছে বলে এবং বিএনপি ‘ষড়যন্ত্রের কলকাঠি’ নাড়ছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। লন্ডন থেকে ঢাকা কে কোথায় যাচ্ছেন, কী করছেন, তার সবই জানা বলে বিএনপি নেতাদের হুঁশিয়ার করেছেন এই মন্ত্রী।

শনিবার রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিটউশন মিলনায়তনে যুবলীগের এক আলোচনা সভায় কাদের বলেন, “সুপ্রিম কোর্টের রায় নিয়ে গর্তে থেকে বের হয়ে লাফালাফি করছে বিএনপি। কয়েকদিন লাফালাফি করে এখন তারা বুঝতে পেরেছে ক্ষমতার রঙিন খোয়াব আবারও কর্পূরের মতো উবে গেছে। তাই তারা ষড়যন্ত্রের কলকাঠি নাড়ছে।” বিদেশে বসে বিএনপি সরকারকে হটানোর ষড়যন্ত্র করছে বলে অভিযোগ করেন তিনি।

“সব জানি আমরা। কোথায়, কারা কারা যাচ্ছে, কী আলাপ হচ্ছে? লন্ডনের খবর, দুবাইয়ের খবর, ব্যাংককের খবর, কী কী শলা-পরামর্শ হচ্ছে, কোন কোন পথ খোঁজা হচ্ছে শেখ হাসিনার সরকারকে হটানোর জন্য। “এই সব খবর এই তথ্য প্রবাহের যুগে গোপন থাকে না। সব আমরা জানি। কারা কারা এ ষড়যন্ত্রের কলকাঠি নাড়ছে, সব খবর আমাদের কাছে আছে।” “তাদের ভোট কেন্দ্রে যাওয়ার লোকও থাকে না। যদি জামায়াত না থাকত, ভোটকেন্দ্রেও বিএনপির লোক থাকত না। জামায়াতকে নিয়ে তারা এখন পুরনো খেলায় মেতে উঠেছে।”

যুবলীগের নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ থেকে ষড়যন্ত্র মোকাবেলার আহ্বান জানান আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। “প্রস্তুত হয়ে যান, বিএনপি আবার ক্ষমতায় এলে ২০০১ সালের চেয়েও ভয়ঙ্কর অবস্থা ফিরে আসবে।” বিএনপি উত্তরাঞ্চলে কোনো ত্রাণ দেয়নি দাবি করে কাদের বলেন, “দুর্গত এলাকার কোনো মানুষ বলতে পারে নাই বিএনপি ত্রাণ নিয়ে কোন এলাকায় আছে। ফটোসেশন করে চলে এসে এখন সরকারের বিরুদ্ধে বিষোদগার করছে।”

যুবলীগের প্রকাশনা সম্পাদক ইকবাল মাহমুদ বাবলুর সঞ্চালনায় শোক দিবসের এই আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য নাসরিন আহমাদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি এ এস এম মাকসুদ কামাল, যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক হারুনুর রশীদ, সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য শহীদ সেরনিবায়াত, মুজিবুর রহমান চৌধুরী, ঢাকা দক্ষিণ যুবলীগের সভাপতি ইসমাঈল চৌধুরী সম্রাট।