বার্সেলোনার লাস রামব্লাসে সন্ত্রাসী হামলা, আহত ৩২

স্পেনের বার্সেলোনাতে একটি কাভার্ড ভ্যান পথচারীদের ওপর উঠিয়ে দিলে একজন নিহত এবং ৩২ জন আহত হয়েছেন। স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার বিকালে জনপ্রিয় পর্যটন কেন্দ্র লাস রামব্লাসে এই হামলার ঘটনা ঘটে বলে পুলিশ জানিয়েছে। কাতালান পুলিশ বলেছে, ঘটনাটিকে সন্ত্রাসী হামলা বলেই মনে করা হচ্ছে। কাটালান পুলিশের এক মুখপাত্র জানান, একজন ভ্যানচালক লাস রামব্লাস এলাকায় তীব্র গতিতে পথচারীদের ওপর গাড়িটি তুলে দেয়। এতে বেশ কয়েকজন হতাহত হয়েছে। হামলার কারণ সম্পর্কে পুলিশ কিছু জানাতে পারেনি।

এর আগে স্পেনের পুলিশ টুইটারে এ ঘটনায় আরও কয়েকজন আহত হওয়ার কথা জানায় এবং ঘটনাটিকে বড় ধরনের ধ্বংসযজ্ঞ বলে বর্ণনা করেছে। বার্সেলোনা পুলিশ টুইটারে এই ঘটনাকে ‘ভয়ানক হামলা’ বলে উল্লেখ করেছে। নিরাপত্তা বাহিনী ঘটনাস্থল ঘিরে রেখেছে। বেশ কয়েকটি অ্যাম্বুলেন্স ঘটনাস্থলে পৌঁছেছে। ঘটনাস্থল থেকে পাওয়া খবরে বলা হয়েছে, জরুরি সেবা কর্মীরা প্লাসা কাতালুনিয়ার আশেপাশের এলাকা থেকে লোকজনকে দূরে সরে থাকার আহ্বান জানিয়েছে।

ঘটনার পরপরই স্পেনের এল পেরিওডিকো পত্রিকা জানায় বার্সেলোনা শহরের কেন্দ্রস্থলে একটি বারে দুই অস্ত্রধারী লুকিয়ে ছিল। ওই এলাকায় গুলির আওয়াজও শোনা গেছে। তবে এ ঘটনার সঙ্গেড় ভ্যান চালনার ঘটনার কোনও যোগসূত্র আছে কিনা তা তাৎক্ষণিকভাবে জানা যায়নি। লোকজন কাছাকাছি দোকান এবং ক্যাফেগুলোতে আশ্রয় নিচ্ছে এবং স্থানীয় মেট্রো ও ট্রেন স্টেশনগুলো বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে। গত বছরের জুলাই থেকে ইউরোপের বিভিন্ন দেশে ভিড়ের মধ্যে গাড়ি তুলে দিয়ে জঙ্গি হামলা চালিয়েছে। নিস, বার্লিন, লন্ডন এবং স্টকহোমে এই ধরনের হামলায় ১০০ জনের বেশি মানুষ নিহত হয়েছে।

বার্সেলোনার স্থানীয় ২০ বছর বয়সী এক যুবক বিবিসি কে বলেছেন, অত্যন্ত বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে। প্রত্যেকেই নিরাপদ আশ্রয়ের সন্ধানে ছুটছে। এখানে অনেক মানুষ আছে। অনেক পরিবার আছে। এ এলাকাটিই বার্সেলোনার সবচেয়ে জনপ্রিয় দর্শনীয় স্থান। “আমার মনে কয়েকজনকে ভ্যানের ধাক্কা লেগেছে। এটি খুবই ভয়াবহ। আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে।

ভয়ঙ্কর ব্যাপার।” ওই যুবক নিজেও একটি স্টারবাকসের কফিশপে ঢুকে আত্মরক্ষার চেষ্টা করছেন বলে জানান। এল পাইস পত্রিকা বলেছে, গাড়ির চালক মানুষজনকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেওয়ার পর পায়ে হেঁটে পালিয়ে গেছে। এলাকাটির এক কর্মী বিবিসি কে বলেন, “আমার অফিসের লোকজন লাস রামব্লাসে একটি ভ্যান মানুষজনের ওপর দিয়ে চালিয়ে দিতে দেখতে পায়।”

“আমি তিন-চার জনকে মাটিতে পড়ে যেতে দেখলাম। ঘটনাস্থলে এখন সারি সারি এম্বুলেন্স আর সশস্ত্র পুলিশের ভিড়।” ঘটনাটির বিস্তারিত এখনও পরিষ্কার জানা যায়নি। তবে গাড়িটি মানুষজনকে আক্রমণ করার জন্যই ব্যবহার করা হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। যেমন হামলা এর আগে গত বছর জুলাইয়েও হয়েছে ইউরোপজুড়ে।