ইউএনও মনদীপের সহায়তায় শান্তিলতার পরিবার খুঁজে পেল নতুন ঠিকানা

যশোরের অভয়নগর উপজেলার প্রেমবাগ ইউনিয়নের বিদ্যানুরাগী নারী শান্তিলতা ঘোষ (৯০)। নিজের সাড়ে সাত বিঘা পৈতৃক জমি দান করেছেন এলাকার দুটো বিদ্যালয়কে। মাগুরা মাধ্যমিক ও মাগুরা প্রাথমিক বিদ্যালয়।

বিদ্যালয়কে জমি দিয়েছেন, কিন্তু কোনো খোঁজ রাখেনি বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। গেল মাসে ভিটে বাড়িতে সাপ দেখে শুরু হয় খোঁজাখোঁজি। মেলে ৫টি জাতিসাপ। তবে এ খোঁজার তোলপাড়ে আর বৃষ্টিতে ভেঙ্গেচুড়ে যায় শান্তিলতার মাটির ঘরটি। খোলা আকাশের নিচে পুরো একদিন কাটে শান্তিলতা দেবীর। ফেসবুকে খবরটি দেখতে পান উপজেলা নির্বাহী অফিসার মনদীপ ঘরাই। ছুটে যান শান্তিলতার কাছে। আড়াই বান্ডিল টিন আর সাড়ে সাত হাজার টাকা দিয়ে শুরু করে দেন ঘর নির্মাণের কাজ। সেই শুরুতেই হল সারা। এগিয়ে আসেন সবাই।

ইউপি চেয়ারম্যান, পুজা উদযাপন পরিষদের সভাপতিসহ অনেকেই এগিয়ে দেন সহযোগিতার হাত। মোট ৬ বান্ডিল টিন ও ৪০ হাজার টাকা খরচে গড়ে তোলা হয় ঘর। মনদীপ ঘরাই শান্তিলতার এ নিবাসের নাম দিয়েছেন “শান্তিলতার শান্তিনীড়”। ইউএনও মনদীপ জানায়, আজ থেকে শান্তিলতার পরিবার খুঁজে পেল একটা নতুন ঠিকানা।

হারুন-অর-রশীদ, ফরিদপুর প্রতিনিধি