পাল্টে গিয়েছে সুদর্শন অভিনেতা সজলের চিরচেনা রূপ

বাংলাদেশের টিভি পর্দার অন্যতম জনপ্রিয় অভিনেতা সজল। দীর্ঘ ক্যারিয়ারে অভিনয় দিয়ে অর্জন করেছেন অসংখ্য ভক্তের ভালোবাসা। প্রতি বছরের মতো এবারের কোরবানীর ঈদেও বেশ কিছু নাটকে অভিনয় করছেন এই সুদর্শন অভিনেতা। শ্রাবনী ফেরদৌস এর রচনা ও পরিচালনায় ‘চেনা অচেনা’ নামের একটি নাটকে এবার সম্পূর্ণ ভিন্ন রূপে দেখা যাবে তাকে।

আসন্ন কোরবানির ঈদ উপলক্ষে বর্তমানে নাটককে ঘিরেই ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন সজল।। তবে এত ব্যস্ততার মাঝেও বুঝেশুনে পা বাড়াচ্ছেন। মানে নতুন নতুন সব চরিত্রে অভিনয়ের চেষ্টা করছেন। সেই ধারাবাহিকতায় আবার নতুন রূপে দেখা দিলেন তিনি। সজল বলেন – ‘এখন তো ব্যতিক্রমী গল্প ছাড়া অভিনয় করিনা। এবারের ঈদে বেশ কয়েকটি কাজ করলাম। সবগুলো নাটকের গল্পেই ভিন্ন ভিন্ন সজলকে দেখতে পারবেন দর্শকরা। বিশেষ করে চেনা অচেনা নাটকে যে চরিত্র প্লে করলাম আগে কখনও এমন চরিত্রে অভিনয় করিনি।’ কারণ দুটো বড় বড় দাঁত আর চোখে মোটা ফ্রেমের গোল চশমা সজলের চিরচেনা রূপ যেন পাল্টে দিয়েছে এই নাটকের চরিত্র।

‘চেনা অচেনা’র গল্প প্রসঙ্গে সজল বলেন, এ নাটকে ফোকলা দাঁতের জন্য অন্য আট-দশজন মানুষের মতো স্বাভাবিক জীবন যাপন করতে পারেনা সজল। সমাজের মানুষের সঙ্গে চলতে ফিরতে বেশ বেগ পেতে হয় তাকে। সম্পর্কও গড়তে পারে না কোন তরুণীর সঙ্গে। কিন্তু এ যুগে কী নারী সম্পর্ক ছাড়া থাকতে পারে যুবক মন। সজলও পারেনা। তাই প্রেম করেন তিনি। তবে বাস্তবে নয় ভার্চুয়াল প্রেম।

সজল ও শখ

সজলের ভাষায়- ‘এই নাটকের মাধ্যমে ফুটে উঠছে ফেসবুকের বর্তমান প্রেক্ষাপট। যেমনটা ভার্চুয়াল কিংবা ফেসবুকে এক রকম লাগে মানুষকে, কিন্তু চাক্ষুষ সেই মানুষটি একেবারেই আলাদা। চেহারায়, কথাবার্তায়, চলন-বলনে। ফেসবুকে দুজন মানুষের পরিচয়। অতঃপর প্রেম। কিন্তু দুজন দুজনক যখন সরাসরি দেখে, তখন পাল্টে যায় দৃশ্যপট। এভাবেই এগিয়ে যাবে নাটকটির গল্প’

শ্রাবণী ফেরদৌসের রচনা ও পরিচালনায় নাটকটিতে সজলের বিপরীতে অভিনয় করছেন অভিনেত্রী শখ। আগামী কোরবানির ঈদে নাটকটি একটি বেসরকারি টিভি চ্যানেলে প্রচার হবে বলে জানিয়েছেন এর নির্মাতা শ্রাবণী ফেরদৌস।