রাজন হত্যায় ফাঁসির কাঠগড়ায় ১২ জন

টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর উপজেলায় জমিসংক্রান্ত বিরোধের জেরে রাজন মিয়া (২৪) এক যুবককে হত্যার দায়ে ১২ জনের মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত। মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে টাঙ্গাইল জেলা ও দায়রা জজ আদালতের স্পেশাল জজ ওয়াহিদুজ্জামান শিকদার এ রায় দেন। মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামিদের মধ্যে আটজন আটক থাকলেও চারজন বর্তমানে পলাতক রয়েছেন।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আটক আসামিরা হলেন- আব্দুল মজিদের ছেলে সাইদুল (২০), মোমিন (২৭), নিজাম প্রামাণিক (৫৫), আবু বকর সিদ্দিক টুনু (৬০), হানু (৩০), বাবু (৩০), সিরাজ প্রামাণিক (৫৫) ও ওহাব (৫০)। এছাড়াও মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত পলাতক আসামিরা হলেন- মজিদ (৪৫) আব্দুল মজিদ (৩৫), মজনু (২০) ও নুরুল ইসলাম (৩০)।

রায়ের বিষয়টি নিশ্চিত করে টাঙ্গাইলের স্পেশাল পিপি অ্যাডভোকেট মুলতান উদ্দিন জানান, গত ২০১৪ সালের ১৩ এপ্রিল সকালে ভূঞাপুর উপজেলার গোবিন্দাসি ইউনিয়নের ভালকুটিয়া গ্রামে জমিসংক্রান্ত বিরোধের জেরে ধরে বাড়িতে ঢুকে কলেজছাত্র ও লাল মিয়ার ছেলে রাজন মিয়াকে (২৪) হত্যা করা হয়। ১৪ এপ্রিল এ ঘটনায় ভূঞাপুর থানায় ১৮ জনকে আসামি করে একটি হত্যা মামলা দায়ের হয়। এ মামলার ছয়জনের নাম বাদ দিয়ে ১২ জনকে আসামি করে ফাইনাল চার্জশিট দেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও ভূঞাপুর থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) ওবাইদুর রহমান। মঙ্গলবার সকালে এ মামলায় ১২ জন আসামির প্রত্যেককে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন জেলা ও দায়রা জজ আদালতের স্পেশাল জজ ওয়াহিদুজ্জামান শিকদার। এ মামলায় আসামিপক্ষের আইনজীবী ছিলেন অ্যাডভোকেট শামীমুল আক্তার।

মামলার রায়ে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন নিহত রাজনের মা শাহিদা বেগম, বাবা লাল মিয়া, বাদীপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট নাজিম উদ্দিন এবং অ্যাডভোকেট লুৎফর রহমান। অতিদ্রুত এ মামলার রায় বহাল ও কার্যকরের দাবি জানিয়েছেন তারা।