হজ্ব যাত্রীদের ভিসা জটিলতা, ফ্লাইট নিয়ে উদ্বেগ সকলে

বাংলাদেশে হজ্ব যাত্রীদের ভিসা জটিলতার পাশাপাশি এখন ফ্লাইট নিয়ে উদ্বেগ দেখা দিয়েছে। ভিসা জটিলতার কারণে যাত্রী কম থাকায় রোববারও একটি ফ্লাইট বাতিল হয়েছে। সবমিলিয়ে এখনো পর্যন্ত ১৯টি ফ্লাইট বাতিল হলো। হজের শেষ ফ্লাইট ২৬শে আগস্ট। কিন্তু মোট হজ যাত্রীর তিন ভাগের দুভাগই এখনো বাকি রয়ে গেছে।

একটি বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থার কর্মকর্তা শেখ গিয়াস উদ্দিন আহমেদ হজ্বের যাওয়ার প্রক্রিয়া শুরু করেন গত বছরের নভেম্বর মাসে। দেশের বাইরে নিয়মিত ভ্রমণ করেন মি. আহমেদ। কিন্তু তিনি বলছেন, এত জটিল প্রক্রিয়া অন্য কোনও ভ্রমণে কখনো দেখেননি। মি. আহমেদ বলেন, এখন শেষ মুহূর্তে এসে ফ্লাইট নিয়ে আশংকা করছেন তিনি।

এবছর হজ্ব যাত্রীর সংখ্যা এক লক্ষ ২৭ হাজারের মতো। যার মধ্যে মোটে এক তৃতীয়াংশ এখনো পর্যন্ত যেতে পেরেছেন। অর্থাৎ ৮৬০০০ হজ্ব যাত্রী এখনো যেতে পারেননি। রোববার পর্যন্ত মোট ৫৯ হাজারের মতো হজ্ব যাত্রীর এখনো ভিসাই বাকি। সেটি এখনো উদ্বেগের বিষয়। কর্তৃপক্ষ অগাস্টের ১৭ তারিখের মধ্যে ভিসা সম্পন্ন করার সময় বেধে দিয়েছে। এর মধ্যে ভিসা সম্পন্ন হবে বলে কর্তৃপক্ষ আশাও করছে। কিন্তু ২৬শে আগস্ট হজ্বের শেষ ফ্লাইট। ইতিমধ্যেই ১৯টি হজ্ব ফ্লাইট বাতিল হয়েছে। কিন্তু শেষ মুহূর্তে ফ্লাইট নিয়ে গোলযোগের আশংকার মধ্যেই এজেন্সিগুলো বলছে, বাংলাদেশে থেকে শুধু দুটো এয়ারলাইন্সের হজ্ব যাত্রী নিয়ে যাওয়ার অনুমোদন রয়েছে। আর সেই দুটি হলো বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স ও সৌদি এয়ারওয়েজ।

মাত্র দুটি বিমান কোম্পানি এত হজ্ব যাত্রীর জন্য ফ্লাইটের সময়সূচী শেষমুহুর্তে দিতে পারবে কিনা সেনিয়ে আশংকা তৈরি হয়েছে। হজ্ব এজেন্সিগুলোর সমিতি হাবের মহাসচিব শাহাদাত হোসাইন তসলিম বলছেন, “সৌদি আরবের একটি নিয়ম হলো ঢাকা বা চট্টগ্রাম থেকে সরাসরি সৌদিতে হজ্বের ফ্লাইট যেতে হবে। অর্থাৎ অরিজিন কান্ট্রি থেকে গন্তব্যে সরাসরি ফ্লাইট। শুধুমাত্র বিমান ও সৌদি এয়ারলাইন্স বাংলাদেশ থেকে সরাসরি সৌদি ফ্লাইট পরিচালনা করে। এটাই আমাদের বলা হয়।”

মি. হোসাইন বলছেন, শুধু দুটি এয়ারলাইন্সের হজ যাত্রী বহনের নিয়ম বদলানো এখন খুবই দরকার। তিনি বলেন, “থার্ড ক্যারিয়ার অর্থাৎ যেমন মধ্যপ্রাচ্য-ভিত্তিক অন্য এয়ারলাইন্স। তারা হয়ত তাদের নিজেদের দেশে আগে যাবে তারপর সৌদি আরব। সেরকম বিমান কোম্পানির মাধ্যমে হজ্ব যাত্রী বহনের অনুমোদন দেয়া উচিত। এতে করে ভাড়ায় প্রতিযোগিতা তৈরি হবে এবং অনেক বেশি হজ্ব যাত্রী বহন করা যাবে।”