ঘুমের ঔষধ খাইয়ে কলেজছাত্রীকে গণধর্ষণ

মাদারীপুরের কালকিনি উপজেলায় ঘুমের ঔষধ খাইয়ে এক কলেজছাত্রীকে গণধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। ওই ছাত্রীকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহভাজন এক তরুণের বাবা-মাকে আটক করেছে পুলিশ।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, বরিশালের একটি কলেজের ওই ছাত্রীর সঙ্গে গৌরনদী উপজেলার রিফাত আকনের (২২) প্রেমের সম্পর্ক ছিল। এর সূত্র ধরে রিফাত বিয়ের কথা বলে ওই ছাত্রীকে কালকিনির একটি বাগানে বেড়াতে নিয়ে আসেন। একপর্যায়ে ছাত্রীকে ঘুমের ঔষধ খাইয়ে অচেতন করে রিফাত আকনসহ তাঁর চার বন্ধু মিলে ধর্ষণ করেন। পরে ওই ছাত্রী গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে রিফাত ও তাঁর বন্ধুরা মিলে তাকে কালকিনি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে রেখে পালিয়ে যান। পরে রিফাতের বাবা-মা ঘটনা জানতে ওই স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যান। এ সময় কালকিনি থানার পুলিশ তাঁদের আটক করে।

রিফাতের বাবা বলেন, ‘আমি এর দায় এড়িয়ে যেতে পারি না। আমার ছেলে হোক আর যে-ই হোক, আজ সে একজন অপরাধী।’ কালকিনি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) একরামুল ইসলাম বলেন, ‘আমরা এখানে তাকে অচেতন অবস্থায় পেয়েছি। তাকে ঘুমের ঔষধ খাওয়ানো হয়েছে। প্রাথমিকভাবে ওই শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের আলামত পাওয়া গেছে। তার চিকিৎসা চলছে।’

কালকিনি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কৃপাসিন্ধু বালা বলেন, কলেজছাত্রীকে ধর্ষণের ঘটনায় রিফাতকে না পেয়ে তাঁর বাবা-মাকে আটক করা হয়েছে। ছাত্রীর পরিবারকে খবর দেওয়া হয়েছে। তারা অভিযোগ দিলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।