ইন্টারনেটে ধর্ষণের ভিডিও, ধর্ষক গ্রেফতার

রাজশাহীর পুঠিয়ায় স্বামী পরিত্যক্ত নারীকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণ ও ধর্ষণের ভিডিও চিত্র ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগে আল মামুন (২৪) নামে এক যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। আজ শুক্রবার ভোর ৪টার দিকে নাটোরের সিংড়া উপজেলার খরিসাক্ষা গ্রাম থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। আল মামুন ঘটনার পর থেকে তার আত্মীয় আদম আলীর বাড়িতে পালিয়ে ছিলেন বলে এলাকাবাসী জানান।

গ্রেফতার আল মামুন (২৪) নাটোর নবাব সিরাজউদ্দৌলা সরকারি (এনএস) কলেজের ডিগ্রি প্রথম বর্ষের ছাত্র ও উপজেলার জিউপাড়া ইউনিয়নের সৈয়দপুর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি সমশের আলীর ছেলে। গত ২ আগস্ট বুধবার রাত ১০টার দিকে ওই ভুক্তভোগী নারী পুঠিয়া থানায় হাজির হয়ে আল মামুনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, উপজেলার ধোপাপাড়া এলাকার জনৈক ব্যক্তির স্বামী পরিত্যক্ত মেয়ে আল মামুনের গ্রাম সৈয়দপুরে একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করেন। প্রতিদিন আসা যাওয়ার সুবাদে ওই নারীর সঙ্গে আল মামুনের পরিচয় হয়। পরিচয়ের কিছুদিন পর আল মামুন ওই নারীকে বিয়ের প্রস্তাব দেন। বিয়ের প্রস্তাবে রাজি হলে গত ১৫ মে বিকেলে বিয়ের জন্য ওই নারীকে নিয়ে আল মামুন রাজশাহীতে রওনা হন এবং শর্ত দেন বিয়ের ব্যাপারে কাউকে কিছু না জানাতে। রাজশাহী শহরে গিয়ে সময় ক্ষেপন করে কাজী নেই কাল বিয়ে হবে বলে আল মামুনের এক আত্মীয়ের বাসায় নিয়ে গিয়ে স্ত্রীর পরিচয় দেন। সে রাতেই আত্মীয়ের বাসায় ওই নারীকে ধর্ষণ করে সেই দৃশ্য নারীটির অজান্তে মোবাইলে ভিডিও ধারণ করে তাকে ফেলে চলে আসে আল মামুন।

পরে তাকে বিয়ের জন্য চাপ দিলে নারীটিকে বিয়ে করতে অস্বীকার করে উল্টো তার সঙ্গে আবারও শারীরিক সম্পর্ক করতে হবে, নইলে সে রাতে করা ধর্ষণের ভিডিও ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেওয়া হবে বলে হুমকি দেয় আল মামুন। তার কথায় রাজি না হওয়ায় গত ২০ জুলাই ভিডিওটি ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেয় আল মামুন। এরপর গত ২ আগস্ট বুধবার রাতে ওই নারী বাদী হয়ে আল মামুনকে আসামি করে পুঠিয়া থানায় মামলা দায়ের করেন।

পুঠিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সায়েদুর রহমান ভূইয়া জানান, মামলার পর থেকে আল মামুন এলাকা ছেড়ে পালিয়ে ছিল। বৃহস্পতিবার গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পেরে শুক্রবার ভোর ৪টার দিকে নাটোরের সিংড়া উপজেলার খারাসাক্ষা গ্রামে আল মামুনের আত্মীয়ের বাড়ি থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আল মামুন তার অপরাধ স্বীকার করেছে। দুপুরে তাকে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে বলেও জানান ওসি।