প্রেমিককে ইউপি মেম্বারের লাঠি পেটা, অপমানে প্রেমিকার আত্মহত্যা

বান্দরবানের রোয়াংছড়ি উপজেলার ছাইঙ্গা এলাকার দানেশ পাড়ায় একটি বাসা থেকে রোজিনা আক্তার (১৬) নামের এক কিশোরীর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। বুধবার বিকালে এই ঘটনা ঘটে। পরিবারের সদস্যরা জানান, প্রেম ঘটিত ঘটনা নিয়ে সামাজিক বিচারে প্রেমিককে ইউপি মেম্বারের মারধোরের ঘটনার পর অপমানে ঐ কিশোরী আত্মহত্যা করেছে।তবে পুলিশ বলছে ঘটনাটি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

বুধবার সন্ধ্যায় কিশোরীর লাশ ময়না তদন্তের জন্য বান্দরবান সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। পুলিশ ও স্থানিয়রা জানায়,জেলার রোয়াংছড়ি উপজেলার তারাছা ইউনিয়নের দানেশ পাড়ার আবদুর রবের কিশোরী মেয়ে রোজিনা আক্তারের সাথে নির্মান শ্রমিক জমির উদ্দিনের মধ্যে প্রেম চলছিল। মঙ্গলবার তারা ঐ এলাকায় বসে কথা বলার সময় স্থানিয় লোকজন তাদের ধরে ইউপি সদস্য মোঃ মোরশেদের হাতে দেয়।

এদিকে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সামাজিক বিচারে মোরশেদ মেম্বার লাঠি দিয়ে লোকজনদের সামনেই বেধরক পিটিয়ে আহত করে প্রেমিক জমির উদ্দিনকে। অন্যদিকে কিশোরী রোজিনাকে তার পরিবারের সদস্যরা মারধোর করে। বুধবার একটি তালাবন্ধ বাসা থেকে কিশোরী রোজিনা আক্তারের লাশ উদ্ধার করা হয়। রোজিনার ভাই মোঃ আমিন জানান,রোজিনা বুধবার গলায় দড়ি দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। তাকে মারধোরের কথা স্বীকার করেন আমিন। ইউপি মেম্বার মোঃ মোরশেদ জানান,স্থানিয়রা প্রেমিক প্রেমিকা দুজনকে ধরে দেয়ার পর সামাজিক বিচারে প্রেমিক জমির উদ্দিনকে হাল্কা ভাবে মারধোর করা হলেও রোজিনাকে তার পরিবারের হাতে তুলে দেয়া হয়। তাকে বিচারে মারধোর করা হয়নি। তবে কি কারনে রোজিনা আত্মহত্যা করেছে তা তিনি জানেন না বলে জানিয়েছেন। তারাছা ইউনিয়নের ইউপি চেয়ারম্যান উথোয়াই চিং মারমা জানান,সামাজিক বিচারে মেম্বারের মারধোরের কথা শুনেছি।

এ ঘটনায় এক কিশোরীর লাশ হাসপাতাল মর্গে নেয়া হয়েছে। তবে কি কারনে ঘটনাটি ঘটেছে তা খবর নিয়ে দেখবেন বলে জানান ইউপি চেয়ারম্যান। এ বিষয়ে পুলিশ সুপার পুলিশ সুপার সাজ্ঞিত কুমার রায় জানান ঘটনার কথা শুনেছি। বিষয়টি তদন্ত করে দেখার জন্য স্থানিয় থানাকে বলা হয়েছে বলে জানান পুলিশ সুপার।

সোহেল কান্তি নাথ, বান্দরবান