জমিজমার জের ধরে গৃহবধূকে কুপিয়ে হত্যা!

ঘাটাইলে আকলিমা (৩০) নামে এক গৃহবধূকে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। পুলিশ আজ ঘটনাস্থল থেকে তার লাশ উদ্ধার করেছে। এর আগে মঙ্গলবার রাত অনুমান ১১টায় দিকে উপজেলার দিগড় ইউনিয়নের জিগারতলা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। তার স্বামীর নাম আ. লতিফ। নিহত গৃহবধূর পরিবারের দাবি জমিজমা নিয়ে বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষরা তাকে হত্যা করেছে।

পুলিশ ও নিহতের পরিবার জানান, উপজেলার জিগারতলা গ্রামের হাছেন আলী, ইমান আলী, খোকা মিয়ার সাথে আ. লতিফ ও হারেজ আলীদের জমিজমা নিয়ে বিরোধ ছিল। বিরোধ থাকার কারণে আ. লতিফ পুরাতন বাড়ি ছেড়ে একটু দূরে নতুন বাড়ি করে স্ত্রী আকলিমা দুই সন্তান রাকিব (১২) ও তামান্নাকে (৪) নিয়ে বসবাস করছিল। বর্তমানে বাড়ির চারপাশে পানি রয়েছে। নৌকা যোগে অথবা বিকল্প কোন ব্যবস্থায় বাড়িটিতে যাতায়াত করতে হয়।

মঙ্গলবার গভীর রাতে গৃহবধূ আকলিমা প্রকৃতির ডাকে ঘরের বাইরে বের হয়। এ সময় একদল দুর্বৃত্ত বাড়ির ওঠানে তাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কোপালে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। এ সময় তার স্বামী আ. লতিফ ও শিশু কন্যা তামান্না বাড়িতে ছিল। পরে খবর পেয়ে পুলিশ রাতেই ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশটি উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে।

নিহতের ভাসুর হারেজ আলী জানান, চাচাতো মামা হাছেন, ইমান আলী, খোকা মিয়াদের সাথে তাদের জমিজমা নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। সম্প্রতি তারা আ. লতিফ ও হারেজদেরকে বিভিন্নভাবে হুমকি দিয়ে আসছিল। এ কারণে তিন মাস আগে ঘাটাইল থানায় একটি সাধারণ ডাইরি করে তারা।

গত দুই দিন যাবৎ বর্ষার পানি থাকায় প্রতিপক্ষের লোকজন মোস্তফা, সাইদুর ও মনা নৌকা দিয়ে বাড়ির আশেপাশে টহল দিয়ে হুমকি ও গালিগালাজ করে আসছিল। তাদের দাবি জমিজমা নিয়ে বিরোধের জের ধরেই আকলিমাকে পরিকল্পিতভাবে খুন করা হয়েছে।

ঘাটাইল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. মহি উদ্দিন পিপিএম জানান, লাশ উদ্ধার করে আজ ময়না তদন্তের জন্য টাঙ্গাইল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। কি কারণে কারা এই খুনের ঘটনা ঘটিয়েছে, তা এখনও পরিষ্কার নয়। পুলিশের উর্ধ্বতন কতৃপক্ষ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। হত্যা ঘটনা রহস্য উৎঘাটনের জন্য তদন্ত চলছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছিল।