ই-ভিসার জটিলতায় বাতিল হল ১২ টি হজ ফ্লাইট!

ই-ভিসা জটিলতাসহ যাত্রী সংকটের কারণে পবিত্র হজ গমনেচ্ছু যাত্রীদের বুধবার সকালের ফ্লাইটটি বাতিল করেছে বাংলাদেশ বিমান। এ নিয়ে চলতি মৌসুমে বিমানের ১২টি এবং সৌদি বিমানের তিনটি হজ ফ্লাইট বাতিল হলো।

গতকাল বিমানের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, বাতিলকৃত ফ্লাইটের কারণে বিমানের হজযাত্রী পরিবহনে ৫ হাজার আসনের ক্যাপাসিটি খোয়া গিয়েছে। গত ৪ঠা আগস্ট শুরু হওয়া হজ ফ্লাইট পরিচালন কার্যক্রমের আওতায় এ পর্যন্ত বাতিলকৃত ফ্লাইটের কারণে আর্থিক ও মারাত্মক যাত্রী সংকটের মুখোমুখি হয়েছে বিমান। ফ্লাইট বাতিল এবং যাত্রী সংকটের বিষয়টি বিমানের জন্য উদ্বেগজনক। বিমানের জনসংযোগ ম্যানেজার শাকিল মেরাজ বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, একই কারণে মঙ্গলবারও চারটি ফ্লাইট বাতিল করা হয়। মঙ্গলবার ভোর ৪টা ৫৫, সকাল ৮টা ৫৫, বিকেলের ফ্লাইট ও রাত ১১টা ৪৫ মিনিটের ফ্লাইট বাতিল হয়। এদিকে

উদ্ভূত পরিস্থিতিতে গত শনিবার আশকোনা হজ অফিসে হজ এজেন্সিদের নিয়ে এক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। তাতে হজ অফিসের পরিচালক ড. আবু সালেহ মোস্তফা কামাল হজ এজেন্সিগুলোকে বিমানের ক্যাপাসিটি লস ও হজ ফ্লাইট বাতিলের বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করে ভিসা হয়েছে এমন হজযাত্রীদের পাঠানোর অনুরোধ জানিয়েছেন।

তবে অনেক এজেন্সি মালিক তাদের হজযাত্রীদের মধ্যে নানা জটিলতার কারণে আংশিক ভিসা হওয়া এবং কিছু সংখ্যকের এখনো ভিসা না হওয়ায় একত্রে পাঠাতে পারছে না এমনটি জানিয়েছেন। আবার অনেকে মক্কা ও মদীনায় বাড়ি ভাড়ার তারিখের সঙ্গে সমন্বয় করে পরে হজযাত্রীদের পাঠানোর অপেক্ষায় থাকার কারণে এখনই হজযাত্রী পাঠাচ্ছেন না বলে জানিয়েছেন।

বেশ কিছু এজেন্সি বিলম্বে হজযাত্রী রেজিস্ট্রেশনসহ নানা জটিলতার কারণে মক্কা-মদীনায় এখনো বাড়ি ভাড়ার কাগজপত্র তৈরি করে হাতে না পাওয়ার কারণে বারকোড নিয়ে দেশে ফিরে ভিসার জন্য আবেদন করতে পারছেন না বলে জানিয়েছেন।