“বঙ্গবন্ধুকে হত্যার ষড়যন্ত্রকারীদেরও বিচার হওয়া দরকার”

আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, ১৫ আগস্ট জাতির জনক বঙ্গবন্ধুকে হত্যার সঙ্গে যারা জড়িত ছিল শুধু তাদেরেই নয়, যারা এর পেছনে ষড়যন্ত্র করেছিল তাদেরও বিচার হওয়া দরকার। তিনি বলেন, এই হত্যাকাণ্ডে যারা সরাসরি অংশ নিয়েছিলেন শুধু তাদের মাধ্যমেই সংঘটিত হয়নি। এই হত্যাকাণ্ড দেশি-বিদেশি ষড়যন্ত্রের ফল।

মঙ্গলবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে ‘২১ আগস্ট বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় কমিটির আয়োজনে ‘আগস্ট মাস বাঙালি জাতির শোকের মাস’ শীর্ষক এক মানববন্ধনে তিনি এসব কথা বলেন। আয়োজক সংগঠনের সভাপতি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিকের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক আক্তার হোসেন, সহ-সভাপতি নুরুল আমিন রুহুল প্রমুখ।

ড. হাছান মাহমুদ আরও বলেন, ইতিহাসে সঠিক তথ্য সন্নিবেশিতকরণ এবং ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে সত্য জানানোর স্বার্থে বঙ্গবন্ধুর হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় জিয়াউর রহমানসহ জড়িতদের বিচার করতে হবে। এটিই হচ্ছে জাতির প্রত্যাশা বলে মন্তব্য করেন সাবেক এই মন্ত্রী।

২১ আগস্টের গ্রেনেড হামলা বিএনপির পৃষ্ঠপোষকতায় এবং তারেক রহমানের পরিচালনায় হয়েছে মন্তব্য করে ড. হাছান বলেন, এই হত্যাকাণ্ডের দায় শুধু তারেক রহমানের একার নয়, এর দায় বেগম খালেদা জিয়ার ওপরও বর্তায়। এ হত্যাকাণ্ডের দায় বেগম খালেদা জিয়া এড়াতে পারেন না। তিনি সেই দিন রাষ্ট্র ক্ষমতায় ছিলেন। রাষ্ট্রযন্ত্র এই হত্যাকাণ্ডের সহায়তা করেছে। সুতরাং এই হত্যাকাণ্ডের বিচারের আওতায় বেগম খালেদা জিয়াকেও আনতে হবে।

ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিকী বলেন, এ দেশকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা থেকে যারা দূরে সরিয়ে দিচ্ছে সবাই একত্র হয়ে তা প্রতিরোধ করতে চাই। আমরা জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর চেতনার স্বপ্নের বাংলাদেশ গড়ে তুলতে চাই।