ফরিদপুরে থামছে না সৌদিতে নিহতের পরিবারের কান্না

ফরিদপুরের সদরপুর উপজেলার চরবিষ্ণুপুর ইউনিয়নের দোপানলেরটেক গ্রামের মৃত নাজির মোল্যার পুত্র সৌদি প্রবাসী শহিদ মোল্যা (৩০) এর পরিবারের লোকজনের কান্না থামছে না। রবিবার দুপুর ২টায় নিহত পরিবারের বাড়িতে গিয়ে স্ত্রী মমতাজ বেগম (২৭) মা মরিয়ম (৬৫) ছোট বোন শিল্পী ও আত্মীয় স্বজনের বুক ফাটা কান্না ও আহাজারীর দৃশ্যে এলাকার আকাশ-বাতাস ভারী হয়ে উঠে। তাদের দাবী নিহত শহিদের লাশ দ্রুত দেশে ফেরত পাঠানোর। নিহত শহিদ ছয় ভাই বোনের মধ্যে পঞ্চম।

সরেজমিনে তথ্য সংগ্রহ কালে জানা গেছে, গত বৃহস্পতিবার সৌদি সময়ের রাত অনুমান ১০ টায় কাজ শেষে বাসায় ফেরার পথে সড়ক দূর্ঘটনায় শহিদ নিহত হয়। একমাত্র উপার্জনকারী শহিদকে হারিয়ে পরিবারের লোকজন চরম ভাবে ভেঙ্গে পড়েছে। গত দেড় বছর পূর্বে সে শেষ বারের মত সৌদি গিয়েছিল। তাঁর পূর্বে ১০ বছর সৌদি গিয়ে কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে অভাবী পরিবারের কিছুটা সচ্ছলতা ফিরিয়ে আনে।

কিন্তু তাঁর হঠাৎ অকাল মৃতুতে পরিবারের অপূরণীয় ক্ষতি হয়ে গেছে। তাঁর স্ত্রী মমতাজ বেগম কান্না জড়িত অবস্থায় আহাজারি করে বলেন, শিশু দুই পুত্র আব্দুল্লাহ্ (৩) ও সাত মাসের পুত্র আবু সায়েমকে কে নিয়ে ভবিষ্যৎ অন্ধকার দেখছে। তাঁর প্রশ্ন কে দিবে তাদের ভরণ পোষণ, কে দিবে তাদের ভবিষ্যৎ নিশ্চয়তা। মমতাজ এখন পাগল প্রায় এক অসহায় নারী।

হারুন-অর-রশীদ, ফরিদপুর প্রতিনিধি