বাংলাদেশে পুঁজিবাদের পরিস্থিতি ভয়াবহ

শিক্ষাবিদ সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী বলেছেন, সারা বিশ্বে পুঁজিবাদের বর্বরতা চলছে। বাংলাদেশের পরিস্থিতিও ভয়াবহ। দেশ হতাশার মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। এ অবস্থা থেকে মুক্তি পেতে মানুষ বিকল্প রাজনৈতিক শক্তির আশায় আছে। গতকাল শুক্রবার দুপুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ডাকসু ভবনে বিভিন্ন গণমাধ্যমের সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়ে সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী এসব কথা বলেন। সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নে অক্টোবর বিপ্লবের শতবর্ষ উদ্‌যাপনের লক্ষ্যে গঠিত জাতীয় কমিটি এই মতবিনিময়ের আয়োজন করে।

অক্টোবর বিপ্লবের শতবর্ষ উপলক্ষে জাতীয় কমিটি কেন্দ্রীয়ভাবে ঢাকায় আগামী ১ অক্টোবর থেকে ৭ নভেম্বর পর্যন্ত বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করবে। ৭ নভেম্বর মহাসমাবেশ ও লাল পতাকা মিছিলের মধ্য দিয়ে কর্মসূচি আনুষ্ঠানিকভাবে শেষ হবে। জাতীয় কমিটির যুগ্ম আহ্বায়ক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, সারা দেশে এখন জ্ঞানের চর্চা নেই। গবেষণা নেই। প্রকাশনা নেই। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের পদোন্নতির জন্যও গবেষণা এখন আর গুরুত্বপূর্ণ নয়। গবেষণা হলেও তার সামাজিক প্রাসঙ্গিকতা থাকে না। এ অবস্থা থেকে উত্তরণে জ্ঞানের চর্চা বাড়াতে হবে।

আরেক যুগ্ম আহ্বায়ক ভাষাসংগ্রামী আহমদ রফিক বলেন, অক্টোবর বিপ্লবের তাৎপর্য মানুষের কাছে তুলে ধরার জন্য জাতীয় কমিটি নানা কর্মসূচি পালন করবে। এই উদ্‌যাপন কোনো বিশেষ গোষ্ঠীর নয়। এর মাধ্যমে পুঁজিবাদবিরোধী আন্দোলনে উদ্দীপনা তৈরি করতে হবে। অনুষ্ঠানের লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, বাংলাদেশে ন্যূনতম নির্বাচনী গণতন্ত্র এখন অনুপস্থিত।প্রতিষ্ঠিত হয়েছে পরিবারতন্ত্র। উন্নয়নের নামে চলছে লুটপাটের মহোৎসব। পাচার হয়ে যাচ্ছে জাতীয় সম্পদ। অক্টোবর বিপ্লবের শতবর্ষ উদ্‌যাপন অব্যাহত লুটপাট, অগণতান্ত্রিক শাসনের বিরুদ্ধে জনগণকে ঐক্যবদ্ধ করবে।

অক্টোবর বিপ্লবের শতবার্ষিকী উদ্‌যাপনে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষকে সংগঠিত করার উদ্যোগ নিতে কমিটির প্রতি আহ্বান জানান সাংবাদিক সোহরাব হাসান। সভায় জাতীয় কমিটির সমন্বয়ক হায়দার আকবর খান রনো, গণসংহতি আন্দোলনের সমন্বয়ক জোনায়েদ সাকী, বাসদের কেন্দ্রীয় নেতা রাজেকুজ্জামান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।