চার সাক্ষীকে জেরা করতে পারবেন খালেদার আইনজীবীরা

জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাষ্ট দুর্নীতি মামলায় চার সাক্ষীকে জেরা করতে পারবেন বিএনপি চেয়ারপারসনের আইনজীবীরা। আজ রবিবার বিচারপতি মো. শওকত হোসেন ও বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদারের ডিভিশন বেঞ্চ এ সংক্রান্ত এক আবেদন মঞ্জুর করেন।

এর আগে, চার সাক্ষীকে নতুন করে জেরার অনুমতি চেয়ে হাইকোর্টে রিভিশন মামলা দায়ের করেছেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। পরে ২১ জুন হাইকোর্টের সংশ্লি­ষ্ট শাখায় এই আবেদন দাখিল করেন তার আইনজীবীরা।

এদিকে, চ্যারিটেবল মামলার চার সাক্ষীকে জেরার অনুমতি চেয়ে খালেদা জিয়ার আবেদন গত ৮ জুন খারিজ করে দেয় ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৫ এর বিচারক ড. মো. আকতারুজ্জামান। এই খারিজ আদেশের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে রিভিশন মামলা করেন তিনি। এতে বলা হয়, এসব সাক্ষীকে জেরার সুযোগ দেয়া না হলে আবেদনকারী ন্যায় বিচার পাওয়া থেকে বঞ্চিত হবেন। পাশাপাশি, মামলার কার্যক্রমও স্থগিত চাওয়া হয়েছে। আদালতে খালেদা জিয়ার পক্ষে শুনানিতে ছিলেন আইনজীবী এ জে মোহাম্মদ আলী, জয়নুল আবেদিন ও জাকির হোসেন ভূঁইয়া। দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) পক্ষে ছিলেন আইনজীবী খুরশিদ আলম খান।

পরে জাকির হোসেন ভূঁইয়া বলেন, চার সাক্ষী হলেন শেখ মকবুল আহমেদ, আমিরুল আসলাম, অমল কান্তি চক্রবর্তী ও চৌধুরী এম এন আলম। এঁদের মধ্যে প্রথম তিনজন ব্যাংক কর্মকর্তা। অপরজন হচ্ছেন দুদকের সহকারী পরিচালক। জাকির হোসেন ভূঁইয়া বলেন, আগামী বৃহস্পতিবার ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৫ এ সাক্ষীর জন্য দিন ধার্য হয়েছে। পাঁচ সাক্ষীকে জেরার জন্য আবেদনটি করা হয়েছিল, আদালত চারজনকে জেরার আবেদন মঞ্জুর করেছেন।

জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্টের নামে অবৈধভাবে ৩ কোটি ১৫ লাখ ৪৩ হাজার টাকা লেনদেনের অভিযোগে ২০১০ সালের ৮ আগস্ট তেজগাঁও থানায় এ মামলা করে দুদক। মামলায় খালেদা জিয়া ছাড়া অপর আসামিরা হলেন হারিছ চৌধুরী, জিয়াউল ইসলাম ও মনিরুল ইসলাম খান।