বাবার পরিচয় দাবি করায় স্বামীর বন্ধুদের গণধর্ষণের শিকার হয়েছি

‘আমি অনাগত সন্তানের বাবার পরিচয় দাবি করে আমার স্বামীর বন্ধুদের গণধর্ষণের শিকার হয়েছি। আমি ধর্ষণকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই।’ গতকাল শুক্রবার দুপুরে যশোর প্রেসক্লাব মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলন করে এক নারী এই অভিযোগ করেন।

লিখিত বক্তব্যে ওই নারী (৩০) বলেন, অভয়নগর উপজেলার এক ব্যক্তির সঙ্গে ২০১৫ সালের ৩০ অক্টোবর তাঁর গোপনে বিয়ে হয়। কিন্তু এরপর থেকে তিনি বাবার বাড়িতেই থাকতেন। তিনি তিন মাসের অন্তঃসত্ত্বা। এরপর তাঁকে শ্বশুরবাড়িতে তুলে নিতে `স্বামীকে’ চাপ দেন। তখন তিনি বিয়ের বিষয়টি অস্বীকার করেন। এই পরিস্থিতিতে ৭ জুলাই `স্বামীর’ বন্ধু একই এলাকার সাইফার শেখ তাঁকে স্বামীর মালিকানাধীন একটি হোটেলে যেতে বলেন। সেখানে গেলে স্বামীর বন্ধু সাইফার, সুমন, আজিম ও রুবেল তাঁর গর্ভপাত ঘটানোর চেষ্টা করেন। এতে ব্যর্থ হয়ে তাঁকে ধর্ষণ করেন। এ ঘটনায় অভয়নগর থানায় গেলে মামলা নেওয়া হয়নি। পরে যশোরের মুখ্য বিচারিক হাকিম আদালত এবং নারী ও শিশু নির্যাতন ট্রাইব্যুনালে দুটি মামলা করা হয়েছে।

অভয়নগর থানার ওসি আনিসুর রহমান বলেন, ধর্ষণের শিকার কোনো নারী মামলা করতে থানায় আসেননি। এ ব্যাপারে ওই নারী যাকে স্বামী বলে দাবি করেছেন তিনি বলেন, ওই নারীর সঙ্গে তাঁর বিয়ে হয়নি। ওই নারীর গর্ভের সন্তানের তিনি পিতা নন। বন্ধুদের দিয়ে ধর্ষণ করানোর বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি বলেন, এ বিষয়ে তাঁর কিছুই জানা নেই।