বিধিমালার চূড়ান্ত খসড়াটি প্রধান বিচারপতির কাছেঃ আইনমন্ত্রী

প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার সঙ্গে আজ (বৃহস্পতিবার) বিকেলে দেখা করে তাঁর কাছে অধস্তন আদালতের বিচারকদের চাকরির শৃঙ্খলা সংক্রান্ত বিধিমালার খসড়া দিয়েছেন বলে জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক।

সূত্র জানায়, সুপ্রিম কোর্টে প্রধান বিচারপতির খাস কামড়ায় তাঁর সঙ্গে আজ বিকেলে দেখা করেন আইনমন্ত্রী। বিকেল পৌনে চারটা থেকে সোয়া চারটা পর্যন্ত ওখানে ছিলেন আইনমন্ত্রী। আইনমন্ত্রী বলেন, বিধিমালার চূড়ান্ত খসড়াটি প্রধান বিচারপতিকে দিয়ে এসেছি, উনি দেখবেন। সর্বশেষ চূড়ান্ত করবেন রাষ্ট্রপতি। রাষ্ট্রপতির কাছে পাঠানোর আগে উনি (প্রধান বিচারপতি) দেখে দেবেন সেটি চাই।

ওই বিধিমালা নিয়ে গত ১৬ ও ২০ জুলাই প্রধান বিচারপতির সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছিলেন আইনমন্ত্রী। আলোচনা শেষে গত ২০ জুলাই আইনমন্ত্রী আনিসুল হক সাংবাদিকদের বলেছিলেন, আমি শুধু এইটুকু বলতে পারি যে আলোচনায় যথেষ্ট অগ্রগতি হয়েছে। এই ডিসিপ্লিনারি রুলস (শৃঙ্খলা বিধিমালা) গেজেট করার খুব কাছাকাছি চলে এসেছি। এর আগে ১৬ জুলাই সাক্ষাৎ শেষে আইনমন্ত্রী বলেছিলেন, আগামী সপ্তাহে বিধিমালা চূড়ান্ত হবে বলে তিনি আশা করছেন। বিধিমালা গেজেট আকারে প্রকাশে কয়েক দফা সময়ের নেওয়ার পর রাষ্ট্রপক্ষের দুই সপ্তাহ সময় আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে সর্বশেষ ২৩ জুলাই আপিল বিভাগ এক সপ্তাহ সময় দেন। বৃহস্পতিবার বিকেলে সুপ্রিম কোর্টের ওয়েব সাইটে গিয়ে দেখা যায়, আপিল বিভাগের আগামী রোববারের কার্যতালিকার এক নম্বর ক্রমিকে বিষয়টি আদেশের জন্য রয়েছে।

১৯৯৯ সালের ২ ডিসেম্বর আপিল বিভাগ মাসদার হোসেন মামলায় ১২ দফা নির্দেশনা দিয়ে রায় দেন। রায়ের আলোকে নিম্ন আদালতের বিচারকদের চাকরির শৃঙ্খলাসংক্রান্ত বিধিমালা প্রণয়নের নির্দেশনা ছিল। আপিল বিভাগের নির্দেশনার পর ২০১৫ সালের ৭ মে আইন মন্ত্রণালয় বিধিমালার একটি খসড়া তৈরি করে সুপ্রিম কোর্টে পাঠায়। ওই বিধিমালা সংশোধন করে দেন আপিল বিভাগ। এই খসড়া আইন মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়। এই বিধিমালা গেজেট আকারে জারি করে তা দাখিল করতে গত বছরের ২৮ আগস্ট আইন মন্ত্রণালয়কে নির্দেশ দিয়েছিলেন আপিল বিভাগ। এরপর রাষ্ট্রপক্ষ কয়েক দফা সময় নেয়।