ছাত্রের সঙ্গে যৌন সম্পর্ক করায় শিক্ষিকা নিষিদ্ধ

শিক্ষা সফরের সময় বিমানের শৌচাগারে ছাত্রের সঙ্গে যৌন সম্পর্ক করার দায়ে এক শিক্ষিকাকে শিক্ষকতা পেশায় নিষিদ্ধ করা হয়েছে। যুক্তরাজ্যে ব্রিস্টলের একটি স্কুলের শিক্ষিকা এলিয়ানর উইলসন (২৮)। শিক্ষা সফরের সময় ফ্লাইটে বসে এক ছাত্রকে চুমো খান তিনি।

ছাত্রের সঙ্গে অ্যালকোহল পান করেন। পরে শৌচাগারে গিয়ে ওই ছাত্রের সঙ্গে যৌন সম্পর্ক করেন। ওই ছাত্রের সঙ্গে তাঁর এই সম্পর্ক চলছিল বেশ কিছুদিন ধরেই। এই ঘটনায় দেশটির ন্যাশনাল কলেজ ফর টিচিং অ্যান্ড লিডারশিপের (এনসিটিএল) একটি প্যানেলের তদন্তে শিক্ষিকা উইলসন দোষী সাব্যস্ত হন। তদন্তে দেখা গেছে, ২০১৫ সালের আগস্টে ছাত্রটির সঙ্গে যৌন সম্পর্ক করেছিলেন উইলসন।

প্যানেলের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, শিক্ষিকার আচরণ অগ্রহণযোগ্য। তদন্তে দোষী প্রমাণিত হওয়ায় শাস্তি হিসেবে উইলসনকে শিক্ষকতা পেশায় অনির্দিষ্টকালের জন্য নিষিদ্ধ করেছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। এনসিটিএলের তদন্তে দেখা যায়, ২০১৫-১৬ সালে ছাত্রটি ওই শিক্ষিকার অফিসে গেলে দুজনের মধ্যে অগ্রহণযোগ্য সম্পর্ক হয়। শিক্ষিকা তাঁর ফোন নম্বর দেন ছাত্রটিকে। ছাত্রকে নিয়ে বাইরে ঘুরতে যান শিক্ষিকা। অ্যালকোহল পান করেন। দুজনের এই সম্পর্ক গোপন রাখতে ছাত্রটিকে উৎসাহিতও করেছিলেন তিনি। অভিযোগ পেয়ে স্কুল কর্তৃপক্ষ যখন তদন্ত করে, তখন ওই ছাত্র তাদের সম্পর্ক নিয়ে মিথ্যা সাক্ষ্য দেয়। তদন্তের পর প্যানেল বলছে, শিক্ষকতার পেশায় যে মান বা আচরণ কাম্য, তার ঘাটতি দেখা গেছে উইলসনের মধ্যে।

তদন্তকালে অভিযোগ অস্বীকার করেন শিক্ষিকা। তবে অভিযোগ পাওয়ার পর তাঁকে গত বছরই চাকরিচ্যুত করে স্কুল কর্তৃপক্ষ। স্কুল কর্তৃপক্ষের কাছে অভিযোগ পেয়ে তদন্ত শুরু করে এনসিটিএলের প্যানেল। তবে উইলসন এনসিটিএলের শুনানিতে অনুপস্থিত ছিলেন।