মাঝে ওজন অনেকটাই বেড়ে গিয়েছিল শাবনূরের। কিন্তু এবার রোজার ঈদের আগে অস্ট্রেলিয়া থেকে ঢাকায় ফিরে সবাইকে অবাক করলেন শাবনূর। ফেসবুকের একটি ছবিতে স্লিম ফিগারের শাবনূরকে দেখে চমকে যান অনেকেই।

এবার ঢাকায় ফিরেই কারও সঙ্গে কোনো দেখা করেননি শাবনূর। মায়ের ফোন দিয়ে কথা বলেন কয়েকবার। সম্প্রতি হঠাৎ করে পুরোনো অভিনয়শিল্পী–বন্ধু ওমর সানী, মৌসুমী ও অমিত হাসানকে পরিবারসহ তাঁর বাড়িতে ডাকেন। সেদিন তাঁদের আড্ডার স্থিরচিত্র ফেসবুকে পোস্ট করা হয়। সেই ছবিতে স্লিম ফিগারের শাবনূরকে দেখে অবাক অনেকেই। এরপরই আবার যোগাযোগ করা হয় দেশের সিনেমার একসময়ের জনপ্রিয় এই নায়িকার সঙ্গে।

শাবনূর বলেন, ‘মাঝে ওজন অনেকটাই বেড়ে গিয়েছিল। নিজেকে ফিট রাখার জন্য ওজন কমানো খুব প্রয়োজন হয়ে পড়ে। চিকিৎসকের পরামর্শে ওজন কমাই।’ তাহলে কি দর্শকেরা আবার তাকে সিনেমায় দেখতে পাবেন কিনা এমন প্রশ্নে শাবনূর বলেন, ‘এ ব্যাপারে নিশ্চিত কিছু বলতে পারব না। আপাতত অভিনয় নিয়ে নয়, পরিচালনার ব্যাপারটি আমাকে টানছে। তবে এত প্রেম এত মায়া নামের একটি সিনেমায় অভিনয়ের ব্যাপারে কথাবার্তা আগে দেওয়া ছিল, সেটির কাজ হয়তো করব।’

কয়েক মাস অস্ট্রেলিয়ায় থাকার পর ঈদের আগে ঢাকায় এসে নিরিবিলি মায়ের সঙ্গে একান্তে সময় কাটিয়েছেন। মাকে নিয়ে ঘুরতেও বেরিয়েছেন। পাশাপাশি বন্ধু ও একসময়ের সহকর্মীদের সঙ্গে চুটিয়ে আড্ডা দিয়ে সময় কাটছে বলেও জানান তিনি। শাবনূর সাধারণত ঢাকা আর সিডনি যাওয়া-আসার মধ্যে থাকেন। এবার কত দিন দেশে থাকবেন—জানতে চাইলে শাবনূর বলেন, ‘আপাতত আর অস্ট্রেলিয়া যাচ্ছি না। এই বছরটা ঢাকায় থাকব। অস্ট্রেলিয়ায় থাকলেও আমার মনটা কিন্তু পড়ে থাকে দেশেই। আসলে নিজের দেশে থাকার আনন্দই আলাদা।’

উল্লেখ্য, শাবনূর অভিনীত সর্বশেষ মুক্তি পাওয়া সিনেমা কিছু আশা কিছু ভালোবাসা। মোস্তাফিজুর রহমান মানিক পরিচালিত সেই সিনেমায় আরও ছিলেন মৌসুমী ও ফেরদৌস।